What’s happening in current real estate sector of the country? Get the latest news and updates

Read on to find the overall review of the real estate sector of the country collected from various dailies.

“Real Estate Development” by Dr. Toufiq M. Seraj, Engineer Planner and MD of Sheltech Pvt. Ltd.

Source: The Daily Star, 2 February 2016

In the feature, he stated that real estate sector has emerged as an important sector for Bangladesh economy as real estate is one of the main contributors to any nation’s economic development. It is also a huge employment generating sector as well as supports related industries like rod, cement etc. He commented on the essentiality of real estate development in Bangladesh, owing to rapid urbanization, lack of Government capacity to ensure housing for all, high population growth rate and the influx of people into the city.  He remarked that private real estate sector has been catering to housing demand of the country for the past four decades and has been a major contributor of NGDP contributing about 12% along with related industries in FY 2013-14.

Dr. Toufiq mentioned that the demand for housing has increased over time due to socio-economic reasons too, such as change in family structure, better security and amenities which affects apartment buyers’ decision. Although real estate sector has been prevalent for some time, he commented land record management still needs attention to avoid fraudulent practices in real estate and establish trust among buyers.

He observed that real estate business is tied to investment cycle, as real estate affects many other sectors in a significant way. He insisted that real estate does not only respond to market changes but also initiates it. Availability of land, interest rate, income, political conditions- all of these are factors affecting booms and recession in real estate sector development owing to their interdependence. Data of past trend shows how real estate in Bangladesh has fluctuated due to change in political scenario. For instance, real estate sector thrived in 2004-2006 after the recession in 1990-92, followed by another recession in 2006-08. There was another brief boom in 2009-11, but since 2013 real estate sector has been suffering heavily.

Dr. Toufiq commented that both Government and private housing sector need to work together to attract potential investors. He pledged Government to take a lead role to develop fiscal policy and build affordable housing with private sector acting as an auxiliary, in order to solve the housing problem in Bangladesh.

“Ways to protect yourself against earthquake” written by Sarder Amin, Consultant and Vice President in REHAB.

Source: The Daily Ittefaq, 21 April 2016

The writing focused on the recent earthquakes that took place on a global scale from Mizoram to Japan to Ecuador and even Bangladesh. Mr. Amin stated that every minute earthquakes are taking place globally. On 17th April, there was a total of 96 occurrences, on monthly average earthquake occurrence was 1883 and yearly around 50691 which ranges from 2-5 on Richter Scale, any stronger than this can cause damage.

Although Mizoram earthquake epicenter distanced from Dhaka by about 420km, specialists predicted Dhaka would feel the tremors at 4-5 scale and there were several reports of property damage without any major incident.

He opined that the main way to protect against earthquakes is to construct buildings that are safe and earthquake resistant. He stated that damage used to be less previously as buildings were not as high-rise as today’s.

Focusing on main issue to protect against earthquakes, Mr. Amin commented on analytical procedures to make buildings stable and earthquake resistant. Research has been ongoing for Earthquake Protection System which is implemented in design and structure through Seismic Isolation Solution.

Further he commented on consideration of earthquake factor in structural design. The earthquake factor has been determined from historic data of earthquake records for over 150-200 years. For instance in Dhaka, the factor is 0.15g and for Chittagong it is 0.25g. He stated that in roof construction, beams should be used for strengthening the structure and focus should be on beam and column joint detailing along with arrangement of rod. Other important factors to protect against earthquakes include concrete quality, hiring professional builders, formation of committee to oversee quality maintenance after RAJUK approval and ensuring proper foundation building.

For earthquake safety measures Mr. Amin stated some steps to be followed such as arranging furniture so they do not topple over, not standing close to wall,  or using lift, shutting off gas line, staying away from power lines, tall buildings and trees etc.

He stated that Government should take initiatives to ensure security during earthquake by training a division of army for earthquake safety, appoint social workers, strengthen hospital and housing, and arrange helicopters in case of emergency. As more and more structures are being erected, the risk of damage would also increase for which Government needs to take measures and increase awareness among mass without causing panic. He stated that having laws are not enough, but their implementation also needs to be strengthened to develop the society.

“8 Reasons for Stagnant Real Estate Sector”  by Tofazzol Hossain Rubel

Source: Kaler Kontho, 1 June 2016

The writing identified key reasons for which the real estate sector of the country has been sluggish.

Mr. Tofazzel reported that private housing sector has been playing a significant role alongside Government to fulfill the basic housing right as well as in developing the country. However, the sector has been going through turbulent times for past years. Real estate business activity has decreased by 80% and new project initiative has shrunk by 90%. The realtors demanded tax holiday for real estate developers for the next 5 years, scope to invest undisclosed money without any condition for 10 years, installment facility in single digit in 30-35 years, fund raising worth Tk. 20 thousand crores, reduction in registration fee and one stop service initiation along with realistic DAP establishment. The realtors voiced even though the 8 problems for slow real estate have been identified, they remain unresolved.

Ministry of Housing and Public Works, Engineer Mosharruf Hossain stated in Kaler Kantho that similar to Government projects, private housing should also provide long term installment facility to customers when buying an apartment. He insisted the registration fee for land and apartment needs to be lowered to ensure housing for all.

One of the major problems for the current state of real estate is owing to high-interest rate on loan in the country. In developed countries, the rate is 8-5% and the loan tenure is 30-40years but in Bangladesh, the interest rate is 19% which including other charges skyrockets to 22%. If Government arranges a revolving fund with low-interest rate that was previously offered by Bangladesh bank, it would alleviate the situation.  To revive the real estate realtors have been demanding a fund raising worth Tk. 20 thousand crores but to no avail.

The apartment buyers are also dissatisfied with high registration fee and apartment prices. In reality, the apartment price depends on land price which is very high in Dhaka.  Due to DAP, city is not expandingg, as a result Dhaka is one of the densely populated countries in the world among 36 megacities. According to the report in every square kilometre, 81 thousand people resides. To overcome this situation DAP needs to sit with realtors.

Bangladesh Land Developers Association Mostafa Kamal Mohiuddin spoke to Kaler Kantho about involvement of Government to develop the real estate sector and provide housing to every citizen.

Other real estate spokesperson REHAB members also spoke for giving scope to customers to make apartment buying easy with government initiative which will help boost the sector.

“Refinancing scheme demanded to boost real estate sector” from Tribune Business Desk.

Source: Dhaka Tribune, 13 June 2016

The writing reflected the reactions of REHAB leaders at a press conference held following proposed national budget for FY 2016-17.  At the conference, REHAB president Alamgir Shamsul Alamin stipulated on the need of a single digit refinancing scheme along with tax relaxation for real estate developers to help the sector overcome the stagnant market condition.

Earlier, REHAB had given a 13-point proposal to the NBR for the National budget 2016-17 none of which were considered. Mr. Alamgir urged the Government to take short and long term initiative for real estate development. He stated, during past years thousands of Bangladesh currency has been transferred to foreign country due to lack of investment opportunity in country with undisclosed money. The organization had also asked for a fund to provide housing for middle-class people. According to REHAB statistics, sales dipped to 80% while new investment decreased by 90%.

REHAB members urged Government to lower registration cost to 7% from the proposed 14%-16%. Compared to other Asian countries this rate is very high. For instance in India, the fee is 7%, in Srilanka and Nepal, it is 5%.

To sum up, although real estate is a major contributor to Bangladesh GDP, and is crucial for ensuring housing for every citizen, it requires Government support for favorable policies and committee formation to boost the sector and provide quality housing that will ensure the safety of consumers and drive the country’s economy forward.

*********************************************************************

বর্তমানে আমাদের দেশে রিয়েল এস্টেট খাতে কি ঘটছে? জানুন, সর্বশেষ ও সাম্প্রতিক তথ্য।

বিভিন্ন দৈনিক পত্রিকা থেকে সংগৃহীত দেশের বর্তমান রিয়েল এস্টেট খাত সম্বন্ধে সার্বিক পর্যালোচনা পড়ুন।

“রিয়েল এস্টেট ডেভেলাপমেন্ট”- লিখেছেন ডাঃ তৌফিক এম সিরাজ, এমডি, প্রকৌশলী পরিকল্পনাবিদ এবং শেলটেক প্রা. লি.

উৎস- দি ডেইলি স্টার, ২রা ফেব্রুয়ারি, ২০১৬।

এই লেখনিতে তিনি বলেছেন যে, বাংলাদেশের অর্থনীতিতে রিয়েল এস্টেট খাত একটি গুরুত্বপূর্ণ খাতে পরিণত হয়েছে কারন যে কোন জাতির অর্থনৈতিক উন্নয়নে রিয়েল এস্টেট খাত একটি অন্যতম অংশীদার। ইহা প্রচুর কর্মসংস্থান তৈরির খাত, এছাড়া এর সাথে সংযুক্ত বিভিন্ন কল-কারখানা যেমন রড, সিমেন্ট ইত্যাদি খাতকে সহযোগিতা করে থাকে। দ্রুত বর্ধনশীল নগরায়ন, সবার জন্য বাসস্থান নিশ্চিতকরণে সরকারের অক্ষমতা, জনসংখ্যা বৃদ্ধির উচ্চ হার এবং শহরে মানুষের ক্রমবৃদ্ধি ইত্যাদি বিবেচনা করে তিনি বাংলাদেশে রিয়েল এস্টেটের উন্নয়নের উপর বিশেষ গুরুত্তারোপ করেছেন। তিনি বলেন যে, বিগত চার দশক ধরে বেসরকারি/ব্যক্তি মালিকানাধীন রিয়েল এস্টেট দেশের বাসস্থানের চাহিদা পূরণ করে আসছে এবং এলজিডিপি-তে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে, অর্থবছর ২০১৩-১৪ অনুযায়ী যার পরিমান ছিল প্রায় ১২%।

ডাঃ তৌফিক বলেন যে, সামাজিক- অর্থনীতিক কারণে বাসস্থানের চাহিদাও বেড়েছে, পরিবারের গঠন, অধিক নিরাপত্তা এবং সুযোগ-সুবিধার এই পরিবর্তন এপার্টমেন্ট ক্রেতাদের সিদ্ধান্তের উপর প্রভাব বিস্তার করছে। যদিও কিছু সময়ের জন্য রিয়েল এস্টেট খাত আক্রান্ত হয়েছিল, তিনি বলেন যে, রিয়েল এস্টেটে প্রতারণা এড়াতে এবং ক্রেতাদের মধ্যে বিশ্বাস প্রতিষ্ঠা করার জন্য ভূমি নথিকরন ব্যবস্থাপনার দিকে নজর দিতে হবে।

তিনি লক্ষ্য করেন যে, রিয়েল এস্টেট ব্যবসাটি একটি বিনিয়োগ চক্রের মধ্যে আবদ্ধ কারন ইহা অন্য অনেক খাতকে উল্লেখযোগ্যভাবে প্রভাবিত করে থাকে। তিনি জোর দিয়ে বলেন যে, রিয়েল এস্টেট শুধুমাত্র বাজার পরিবর্তনের সাথে পরিবর্তিত হয় না, ইহাও বাজারকে প্রভাবিত করে। জমির পাপ্যতা, সুদের হার, উপার্জন, রাজনৈতিক অবস্থা এই সবকিছুই রিয়েল এস্টেট খাতের উত্থান-পতনে সক্রিয় ভূমিকা রাখে। অতীতের তথ্য থেকে জানা যায় যে, রাজনৈতিক পরিস্থিতি বাংলাদেশের রিয়েল এস্টেটের উঠা-নামাকে কিভাবে প্রভাবিত করেছে। উদাহরণ স্বরূপ বলা যায় যে, ১৯৯০-১৯৯২ এর মন্দার পরে ২০০৪-২০০৬ সালে রিয়েল এস্টেট খাত প্রসার লাভ করে যা অনুসরণ করে ২০০৬-২০০৮ সালের মন্দাকে। এরপর ২০০৯-১১ সালে এটা কিছুটা বিকশিত হয়। কিন্তু ২০১৩ সালের পর থেকে রিয়েল এস্টেট খাত প্রচণ্ডভাবে ক্ষতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। ডাঃ তৌফিক বলেন যে, সম্ভব্য বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করতে সরকার ও ব্যক্তিকে যৌথভাবে কাজ করতে হবে। বাংলাদেশে বাসস্থান সমস্যা সমাধানে ডাঃ তৌফিক সরকারকে কার্যকরী ও অগ্রণী ভূমিকা পালনের মাধ্যমে একটি জাতীয় নীতি প্রনয়নে এবং সাধ্যের মধ্যে বাসস্থান তৈরির জন্য অনুরোধ জানান যেখানে বেসরকারি খাত সহায়ক হিসাবে কাজ করবে।

“ভূমিকম্প থেকে নিজেকে রক্ষার উপায়”- লিখেছেন সরদার আমিন, পরার্মশক এবং সহ-সভাপতি রিহ্যাব।

উৎসঃ দৈনিক ইত্তেফাক, ২১শে এপ্রিল ২০১৬।

এই লেখাতে বিশ্ব তথা মিজোরাম থেকে জাপান, একুয়েডর এমনকি বাংলাদেশে সংঘটিত ভূমিকম্প সম্পর্কে আলোকপাত করা হয়েছে। জনাব আমিন বলেন যে, প্রত্যেক মিনিটেই পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে ভূমিকম্প সংঘটিত হচ্ছে। ১৭ই এপ্রিল পর্যন্ত মোট ৯৬টি ভূমিকম্পের ঘটনা ঘটে, যা মাসে গড়ে ছিল ১৮৮৩টি এবং বছরে ৫০৬৯১টি। রিখটার স্কেলে যার মাত্রা ছিল ২-৫ এর মধ্যে। এর বেশি হলে তা ক্ষতির কারন হবে।

যদিও মিজোরামের ভূমিকম্পের উৎপত্তি স্থল ঢাকা থেকে ৪২০ কিঃ মিঃ দূরে ছিল। বিশেষজ্ঞদের মতে ঢাকায় এর মাত্রা ছিল ৪-৫ এবং সম্পদের অনেক ক্ষয়ক্ষতির সংবাদ পাওয়া যায়, যদিও বড় কোন দুর্ঘটনা ঘটেনি।

তিনি মতামত দেন যে, ভূমিকম্প থেকে বাঁচার প্রধান উপায় হল নিরাপদ ও ভূমিকম্প সহনীয় ভবন নির্মাণ করা। তিনি বলেন যে, অতীতে ক্ষয় ক্ষতির পরিমান কম হতো কারন তখনকার ভবনগুলো আজকের মত এত উঁচু ছিল না।

ভূমিকম্পের বিষয়ে আলোচনা করতে গিয়ে ভবনকে স্তিতিশীল ও ভূমিকম্প প্রতিরোধক করতে জনাব আমিন বিশ্লেষণধর্মী পদ্ধতির উপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেছেন। ভূমিকম্প প্রতিরোধে গবেষণা চলছে যা ভূমিকম্প বিচ্ছিন্নকরণ পন্থার মাধ্যমে নকশা ও কাঠামোতে প্রয়োগ করা হবে।

উপরন্তু, তিনি কাঠামোর নকশাতে ভূমিকম্পের মাত্রাকে বিবেচনা করতে মত প্রকাশ করেন। বিগত ১৫০-২০০ বছরের তথ্য-উৎপাত্ব থেকে ভূমিকম্পের মাত্রা নিশ্চিত করা যাবে। উদাহরণ স্বরূপ- ঢাকার মাত্রা/গুনক হল ০.১৫জি এবং চট্টগ্রামের মাত্রা/গুনক হল ০.২৫জি। তিনি বলেন যে, ছাদ নির্মাণে, কাঠামোকে শক্তিশালী করতে বীমের ব্যবহার এবং বীম ও কলামের সংযোগস্থলে রডের বিন্যাসের উপর গুরুত্ব আরোপ করতে হবে। ভূমিকম্প প্রতিরোধে অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো হচ্ছে- কংক্রিটের গুনগত মান, পেশাদার নির্মাতা নির্বাচন, রাজউক অনুমোদনের পর গুনগত মান যাচাইয়ের জন্য কমিটি করা এবং যথাযথ কাঠামোর ভবন নির্মাণ নিশ্চিত করা।
ভূমিকম্পের নিরাপত্তা ব্যবস্থার ব্যপারে জনাব আমিন কিছু পদক্ষেপের কথা বলেছেন যেমন- আসবাব-পত্রের বিন্যাস এমনভাবে হয় যেন এগুলো হুমড়ি খেয়ে না পরে, দেয়ালের কাছাকাছি না থাকা বা লিফটের ব্যবহার না করা, গ্যাসের চুলা বন্ধ করা, বৈদ্যুতিক সংযোগ, উচু ভবন ও গাছ থেকে দূরে থাকা।

তিনি বলেন যে সেনাবাহিনীর একটি দলকে ভূমিকম্প নিরাপত্তার বিশেষ প্রশিক্ষণ দেয়া, সমাজকর্মী নিয়োগ, ভবনকে শক্তিশালী করা এবং জরুরী প্রয়োজনে হেলিকপ্টারের ব্যবহার ইত্যাদি পদক্ষেপের মাধ্যমে সরকার ভূমিকম্পের সময় নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারে। কাঠামো যত বেশি লম্বা করা হবে ক্ষতির পরিমাণ তত বেশি হবে। যার জন্য সরকারের উচিত আতঙ্ক সৃষ্টি না করে সচেনতা বৃদ্ধির মাধ্যমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা। তিনি বলেন সমাজ ব্যবস্থা গড়ে তোলার জন্য আইন থাকাই যথেষ্ট নয় এর প্রয়োগও জরুরী।

রিয়েল এস্টেট খাত নিশ্চল হবার ৮টি কারন”- লিখেছেন তোফাজ্জল হোসেন রুবেল।

উৎস- কালের কণ্ঠ ১ জুন ২০১৬।

এই লেখাটিতে দেশের রিয়েল এস্টেট খাত মন্থর হওয়ার প্রধান কারণগুলো বর্ণনা করা হয়েছে।

জনাব তোফাজ্জল বিবৃতি করেন যে, দেশের উন্নয়নে এবং বাসস্থানের মৌলিক অধিকার পূরণে ব্যক্তিগত/বেসরকারি হাউজিং খাত সরকারের পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। যাইহোক এই খাতটি বিগত বছরে কঠিন সময় পার করে। রিয়েল এস্টেট ব্যবসার কার্যক্রম ৮০% কমে আসে এবং নতুন প্রকল্প শুরুর কাজ ৯০% কমে যায়। রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ীরা দাবি জানান ৫ বছরের জন্য কর মউকুফের, ১০ বছরের জন্য কোন শর্ত ছাড়াই অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়গের সুযোগ প্রদান, ৩০-৩৫ বছরের জন্য কিস্তি সুবিধা এক অঙ্কের মধ্যে রাখা, ২০ হাজার কোটি টাকার তহবিল সংগ্রহ করা, রেজিস্ট্রেশন ফি কমানো এবং কার্যকরী ড্যাপ প্রতিষ্ঠায় ওয়ান স্টপ সেবা চালু করা। যদিও রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ীরা, রিয়াল এস্টেট ব্যবসা মন্দার কারন হিসেবে এই ৮টি সমস্যার কথা উল্লেখ করেন, যা অমীমাংসিতই রয়ে যায়। হাউজিং এবং জনকর্ম সংস্থান মন্ত্রী প্রকৌশলী মোশারফ হোসেন কালের কণ্ঠকে বলেন যে, সরকারি প্রকল্পের মত ব্যক্তি হাউজিং-এর উচিত এপার্টমেন্ট ক্রয়ের সময় ক্রেতাদের দীর্ঘ মেয়াদী কিস্তি সুবিধা দেওয়া। তিনি জোর দিয়ে বলেন যে, সবার জন্য বাসস্থান নিশ্চিত করার জন্য জমি ও এপার্টমেন্টের রেজিস্ট্রেশন খরচ কমানো উচিত।

বর্তমানে দেশের রিয়েল এস্টেট খাতের একটা বড় সমস্যা হচ্ছে উচ্চ সুদের হার। উন্নত বিশ্বে এই হার ৮-৫% এবং ঋণ প্রদানের সময়কাল ৩০-৪০ বছর হয় কিন্তু বাংলাদেশে সুদের হার ১৯% এর সাথে অন্যান্য চার্জ যুক্ত হয় এটা ২২%-এ দাঁড়ায়। অতীতে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রস্তাব অনুযায়ী সরকার যদি কম সুদের হারে একটি আবর্তনশীল তহবিল গঠন করে তবে তা পরিস্থিতি সহনীয় করতে পারে। রিয়েল এস্টেটকে পুনরুজ্জীবিত করতে রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ীরা ২০ হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠনের দাবী জানান কিন্তু তা হয়নি।

রেজিস্ট্রেশনের অত্যাধিক খরচ এবং এপার্টমেন্ট মুল্যের কারনেও এপার্টমেন্ট ক্রেতারা অসন্তুষ্ট। প্রতিপক্ষকে এপার্টমেন্টের মূল্য নির্ভর করে জমির মূল্যের উপরে ঢাকা শহরে যা অনেক বেশি। ড্যাপের কারণে শহর বর্ধিত হতে পারছেনা, এর ফলে ঢাকা আজ বিশ্বের ৩৬টি ঘনবসতিপূর্ণ শহরের একটি। তথ্য অনুযায়ী প্রতি বর্গকিলোমিটারে ৮১ হাজার মানুষ বসবাস করে। এই পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ীদের সাথে ড্যাপের বসা উচিত।

বাংলাদেশ ল্যান্ড ডেভেলপারস এ্যাসোসিয়েশনের মোস্তফা কামাল মহিউদ্দিন রিয়েল এস্টেট খাতের উন্নয়ন এবং প্রত্যেক নাগরিককে বাসস্থান প্রদানে সরকারের কার্যক্রম সম্বন্ধে কালের কণ্ঠের সাথে কথা বলেন।
এই খাতকে উজ্জীবিত করতে অন্যান্য রিয়েল এস্টেট কোম্পানির প্রতিনিধি হিসাবে রিহ্যাব ক্রেতাদের এপার্টমেন্ট কেনা সহজকরন সরকারের উদ্যোগের পাশাপাশি বিভিন্ন সুবিধা দেবার কথা বলে।

রিয়েল এস্টেট খাতকে উজ্জীবিত করতে পুনরায় বিনিয়োগের পরিকল্পনা”- ট্রিবুন বিজনেস ডেস্ক হতে সংগৃহীত।

উৎস- ঢাকা ট্রিবুন ১৩ জুন ২০১৬।

২০১৬-১৭ সালের প্রস্তাবিত বাজেটের ব্যাপারে একটি সংবাদ সম্মেলনে রিহ্যাব সদস্যদের প্রতিক্রিয়া এই লেখায় প্রতিফলিত হয়েছে। এই সম্মেলনে, এই খাতকে নিশ্চল অবস্থা থেকে বের করতে সহায়তা করার জন্য রিয়েল এস্টেট ডেভেলপারদের আয়কর শিথিল করার সাথে এক অঙ্কের পুনরায় বিনিয়োগের পরিকল্পনার প্রনয়নের উপর জোর দেন রিহ্যাব সভাপতি আলমগীর সামসুল আলামিন।

পূর্বেই, রিহ্যাব জাতীয় বাজেট ২০১৬-২০১৭ এর জন্য ১৩টি প্রস্তাব এনবিআর-কে দেয়, যার কোনটিই গৃহীত হয়নি। রিয়েল এস্টেটের উন্নয়নের জন্য জনাব আলমগীর সরকারকে স্বল্প ও দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা নেওয়ার অনুরোধ জানান। তিনি জানান যে, দেশে বিনিয়োগের সুবিধা না থাকার কারণে বিগত বছরগুলোতে অপ্রদর্শিত অর্থের পাশাপাশি হাজার হাজার বাংলাদেশি টাকা বিদেশে পাচার হয়ে যায়। মধ্যবিত্ত মানুষকে বাসস্থান প্রদানের জন্য একটি তহবিল গঠনেরও দাবী জানায় এই সংস্থাটি। রিহ্যাবের তথ্যমতে বিক্রি কমেছে ৮০% যেখানে নতুন বিনিয়োগ কমেছে ৯০%।

রেজিস্ট্রেশন খরচ প্রস্তাবিত ১৪%-১৬% এর পরিবর্তে ৭% করার অনুরোধ জানায় রিহ্যাব সদস্যরা। এশিয়ার অন্যান্য দেশের তুলনায় এই হার অনেক বেশি। উদাহরন স্বরূপ- ইন্ডিয়ায় এই খরচ ৭%, শ্রীলঙ্কা এবং নেপালে এই খরচ ৫%।
পরিশেষে, যদিও রিয়েল এস্টেট বাংলাদেশ জিডিপি-র মুখ্য অংশীদার এবং প্রত্যেক নাগরিকের বাসস্থান নিশ্চিতকরন অত্যন্ত সংকটময়, এই খাতকে উজ্জিবিত করতে এই খাত বান্ধব নীতি ও কমিটি গঠনে এবং গুনগত আবাস প্রদানে সরকারের সহযোগিতা প্রয়োজন যা ভোক্তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে এবং দেশের অর্থনীতিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে।

Save

Save

Save

Save