What is happening in the Real Estate Market? August 2016 Update

Read on to find the overall review of the real estate sector of the country and neighboring countries collected from various dailies.


“The capital city of Dhaka is expanding in Northern direction”

Source: ProthomAlo

Date: 16 August 2016

The article focuses on theevolution of Dhaka city from a riverside land to an urban zone. The capital city which was situated near Buriganga slowly expanded to its outskirt areas such as Fulbaria and Komlapur after thedevelopment of infrastructure. Later on, the establishment of Tejgaon Airport helped to modernize Dhaka in the northern part. To provide an upgrade to the citizens, HazratShahjal Airport then came to being surrounding which the Uttara Model Town has been built. The city which was known for its waterbodies thus transformed into a modern city with transport facilities like bus service, railway service and airport.
Recently, in Uttara sector 18, a township is underway called Ashulia Model Town. The zone houses eight renowned university campuses besides it being a hotspot for reputed schools. Well established hospitals have also invested in lands located nearby. For ease of commuting without traffic, Metropole has its main station situated here. Apart from these, since the lands are naturally high raised, developers do not necessitate piling during construction.
Under current economic conditions, the land prices are also favorable for consumers for which interest among buyers seems high. Also, employers from EPZ and manufacturing industries near Savar have demonstrated keen interest in this area for a suitable location for their home. Anyone can build their own home in this location amidst natural surroundings.

“HC declares Ashiyan City Housing Project legal scrapping previous verdict”

Court Reporter

Source: businessnews24bd

Date: 16 August 2016

Ashiyan City Housing Project, a project by Ashiyan Lands Development Ltd. situated opposite to Shahjalal International Airport had been affirmed as an illegal project by The High Court. Several environmentalists and right groups, such as Ain O Salish Kendra (ASK), Association for Land Reform and Development, Bangladesh Environmental Lawyers Association (BELA), Institute of Architects, Bangladesh (IAB), NijeraKori and ‘ParibeshBachaoAndolan’ appealed to the High Court against the developer company for violation of the Land Holding (Limitation) Order 1972. According to the Act, a person cannot hold more than 33 acres of land and for agricultural purpose, the limit is 20 acres. However, the residential project had permission for 43.11 acres of land. The developer company defended itself and issued a review which the court granted and terminated the previous verdict.

“Real Estate Sector Overcoming Bad Phase”

Miraz Shams

Source: Samakal

Date: 18 August 2016

The writing contemplates on the improvement of real estate sector. In recent times, flat sale and land sale have increased owing to falling apartment price as well as low-interest rate. These along with other factors, such as weak share market has peakedinterest of middle-income people to invest in property. Currently, the interest rate on home loan is around 9-12%, which a few years ago was as high as 15-19%.
A source from REHAB gave the following data for unsold apartments in the country over the last few years:

Year 2010-2011 2014 2015 2016
Apartments Unsold 3000 (approx) 13000 20000-22000 10000-12000

Currently, Bangladesh real estate has over 3000 companies enlisted, out of which 1139 are REHAB members. Many real estate companies have started development of new projects besides existing ones. Almost Tk 70,000 crore has been invested in this sector. Related sectors have also experienced a boost in the business.

The article shows the following data for change in apartment price location-wise over a span of 4 years:

Location Apartment Price per Squarefoot then Apartment Price per Squarefoot now
Mirpur Tk 4500- Tk 7500 Tk 3000- Tk 5000
Dhanmondi Tk 12000- Tk 20000 Tk 7000- Tk 10000
Gulshan Tk 20000 Tk 12000

REHAB President Alamgir Shamsul seemed positive when he commented that real estate sector is showing signs of recovery but unstable conditions like earthquakes and the Gulshan terrorist attack might slowdown the sector. He urged the government to take initiatives for stable interest rate in the market so that middle-income and low-income people can afford housing.

Mr. Toufik M. Seraj, REHAB’s ex-president and Management Director of Sheltech, commented that current price rate of apartments is lucrative for real estate buyers than it has been in the past few years. He commented the current real estate market is favorable for middle-income range apartment buyers. But he observed that even though real estate sector has come out of inertia, factors like high registration cost and others still pose a problem.

REHAB Vice President, Liakot Ali Bhuiyan spoke to Samakal on government bank’s necessity to offer loans with low interest alongside private banks. Another factor, according to him is the chance to invest black money in real estate without facing any queries which can boost the real estate sector.

On another note, REHAB Vice president and Managing Director of Herb Group, Md. AhkamUllah stated that due to the diminution of signing money in joint venture with landowners, apartment price has fallen. For instance, in Gulshan and Baridhara, the signing money used to be Tk 3-5 crore which is now Tk 25-30 lacs. As a result, developers including Herb Group can take up new projects. Currently, it has 6 running projects and in the pipeline, there are two more.

Mr. Nazrul Islam, Managing Director of Biswas Builders while talking to Samakal, also felt hopeful about the current real estate marketplace. He stated that plot sale may increase by 10% this year from last year. He conveyed to Samakal about the dire times real estate sector of Bangladesh had been facing since 2012, but this year the sector has finally seen some light. Nazmul Ahsan, Manager of Platinum Group further commented that although there have been improvements in real estate sector the situation is still not up to the mark. He stated that due to stagnant market scenario in real estate, many developers for Purbachal Land Development have shut down their business. Previously there were 56 organizations operating in the area which has now come down to only 12 organizations.

“Financiers are waiting for you”

By SanaullahSakib

Source: ProthomAlo

Date: 2nd September 2016

The article focuses on the current low-interest rate on home loans offered by financiers as a side-effect of reduced apartment prices. For a long time, the real estate sector has been going through a dormant situation. As a result of which apartment prices have fallen. Due to this even financial institutions have reduced interest rates close to single digit on home loans.

SayeedJaved Noor, General Manager of Consumer Section of IDLC commented that most middle-income people of our country dream of owning a home. He further added that if an individual earns Tk40,000- Tk 50,000 per month, he can easily buy an apartment of size 900-1000sqft in Mirpur or Dhanmondi location.

Many banks in the country, such as Standard Chartered Bank, Mutual Trust, IFIC, BRAC Bank and several others provide home loan up to 70% for buying an apartment. The availability of these home loans has facilitated real estate investment.

In January 2015, Bangladesh Bank increased the home loan amount from Tk. 1 crore to Tk. 1.20 crore (for schedule banks only). Also, the ratio of home loan to own capital is now 70:30 which means for buying an apartment worth Tk 1 crore, you can avail loan amount upto Tk 70 lacs and the rest Tk 30 lac has to be paid by the consumer.

According to the article, sources say, among the financiers National Housing Finance and Investment and DBH is paying a lot of attention to the home loan sector and have disbursed loan of TK 900 crore and Tk 1000 crore respectively.

Although most financiers have been giving home loan for a long time, only in recent times, the interest rate has come down. The pioneering of this was IFIC bank which offered interest rate as low as 11.95% in January 2015, whereas most banks at that time offered loans with interest rate as high as 15%. Within a year the interest rate was further reduced to 9.99%. Most of the people availing loan from the bank were homeowners, salaried people, and business people.

Managing Director of IFIC Bank, Shah AlamSarwar spoke to Prothom Alo regarding previous high-interest rate dominating marketplace which was a deterrent for flat purchasers. To support the consumers the bank had brought down the interest rate and they have also witnessed the positive result of low-interest rate. As a result, the real estate sector is now once again dynamic.

Prothom Alo reporter spoke to a private employee in Motijheel Branch of Mutual Trust Bank who quoted, “I’d like to purchase an apartment while I’m still working, which is the reason for coming to the bank- to get information about loans. Due to high-interest rate, I lacked the courage. Since recently the apartment prices are affordable and interest rate has come down, I’m thinking of buying an apartment right away. The banks are also interested in giving home loan.”

Real Estate News from Neighboring Countries

“Revival of real estate sector is top priority of the government: Ravi Shankar Prasad”

Ravi Teja Sharma, ET Bureau

Source: The Economic Times

Date: 19 August 2016

Indian Minister of Law and Justice, Electronics and IT stated that the government is interested in offering incentive for the development of real estate and construction sector in India but it should keep in mind the cost is affordable without compromisingthe quality.

Prasad commented that although 90% of developers in the Indian real estate sector are credible, there are few who are lagging. Everyone has to reform and complete projects on time to gain thetrust of consumers.

At a conference organized by National Real Estate Development Council (NAREDCO), Prasad viewed that the government has made several policy reforms to augment real estate and construction sector and in future, government will continue to do so but with the condition that the developers are able to maintain schedule of projects.

Amitabh Kant, CEO of NITI Aayog (National Institution for Transforming India) foretold of a new policy package to fulfill housing demands in India and support thedevelopment of construction industries. The policy would help in urbanization of India. He pinpointed that so far focus has been only on rural development of India, therefore concentration has to be given on urban planning for development of the country.

“Government to bring out low-cost housing scheme for EPFO subscribers”

PTI (Press Trust of India)

Source: The Economic Times

Date: 21 August 2016

The article highlighted a new scheme through which affordable homes will be provided to subscribers ofEmployees’ Provident Fund Organization (EPFO), which is a retirement fund body in India. The announcement came from Bandaru Dattatreya, Minister of Labor and Employment in India.
The scheme would motivate PF members to continue the membership, Mr Dattatreya hopes. According to the article, he expects members would be able to buy a lifelong asset through their provident fund accumulations. The scheme would allow members to buy a home in any location chosen by them. He further hopes the proposal will ensure accommodation for all citizens of the country.

 

********************************************************************************************

বর্তমানে দেশের আবাসন খাতে কি ঘটছে? আগস্ট ২০১৬ এর আপডেট

আহমেদ নাজিয়া

বিভিন্ন দৈনিক পত্রিকা থেকে সংগৃহীত বাংলাদেশ এবং প্রতিবেশী দেশ গুলোর রিয়েল এস্টেট সেক্টরের অবস্থার পর্যালোচনা সম্পর্কে জানতে পড়ুন।

“রাজধানী ঢাকা উত্তরের দিকে সম্প্রসারিত হচ্ছে”

উৎস: প্রথম আলো

তারিখ ১৬ই আগস্ট,২০১৬

নদীতীরবর্তী ঢাকার শহুরে ঢাকায় পরিবরতনের এই যে বিবর্তন সেটাকে এই অনুচ্ছেদে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। বুড়ি গঙ্গার তীরে অবস্থিত রাজধানী ঢাকা তার অবগাঠামোগত উন্নতির পর আশে পাশের শহরতলী যেমন ফুলবাড়িয়া এবং কমলাপুরে বর্ধিত হয়। পরে তেজগাও এয়ারপোর্ট স্থাপিত হওয়ার পর ঢাকাকে উত্তরদিকে আধুনিকায়িত করা হয়, নগরবাসীকে সুবিধা প্রদানে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক এয়ারপোর্টকেকে ঘীরে উত্তরা মডেল টাউন প্রতিষ্ঠিত হয়।যে শহর আগে জলবেষ্টিত ছিলো সেটাকেই মডার্ন টাউনে পরিনত করা হয় বিভিন্ন বাস, ট্রেন এবং এয়ারপোর্ট সার্ভিস এর মাধ্যমে। সম্প্রতি উত্তরা সেক্টর ১৮তে আশুলিয়া মডেল টাউন নামে এক শহরের প্রকল্পের কাজ চলছে।এই প্রকল্পের আওতায় আছে ৮টি নামকরা ইউনিভার্সিটি বিল্ডিং সহ খ্যাতিমান স্কুল। প্রতিষ্ঠিত হাসপাতালগুলোও আশে পাশের তাদের জমিতে বিনিয়োগ করে রেখেছে। যাতায়াতে গাড়ির ব্যবহার কমানোর জন্য আন্ডারগ্রাউন্ড রেলস্টেশনের সুব্যবস্থাও আছে এখানে। এগুলো বাদেও এখানকার মাটি প্রাকৃতিক ভাবেই উর্বর হওয়ায় কাজের সময়ে ডেভেলপারদের বাড়তি কোন পদ্ধতি ব্যবহারেরও প্রয়োজন হচ্ছে না। চলমান দেশীয় অর্থনৈতিক অবস্থার প্রেক্ষিতে জমির দামও ভোক্তাদের অনুকূলে যার জন্য ক্রেতাদের ভিতরেও দারুন আগ্রহ দেখা দিচ্ছে জমি কেনার ব্যাপারে। তাছাড়া এখানে নিজেদের স্থাপনা তৈরির ব্যাপারে সাভারের ইপিজেড সহ আশে পাশের অন্যান্য কলকারখানার কর্মচারীদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া পাওয়া গেছে। অবশ্য যে কেউই এই সুন্দর প্রাকৃতিক পরিবেশের মাঝে নিজেদের ঘর বানাতে ইচ্ছুক হতে পারে।

“পূর্ববর্তী শুনানি বাতিল করে হাইকোর্ট আসিয়ান সিটি প্রকল্পকে লিগ্যাল ঘোষণা করেছে’’

কোর্ট রিপোর্টার

উৎস: businessnews24bd

তারিখ: ১৬ ই আগস্ট ২০১৬

শাহজালাল এয়ারপোর্টের বিপরীত পাশে অবস্থিত আশিয়ান ল্যান্ড ডেভেলপমেন্ট লিমিটেডের আওতাধীন আশিয়ান সিটি প্রকল্পকে হাইকোর্ট থেকে অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছিলো। হাইকোর্ট সহ বিভিন্ন পরিবেশবাদী এবং অধিকার সংস্থা যেমন -আইন ও সালিশ কেন্দ্র(এএসকে), এসোসিয়েসন ফর ল্যান্ড রিফর্ম এন্ড ডেভেলপমেন্ট, বাংলাদেশ এনভাইরনমেন্টাল লয়্যার্স এসোসিয়েশন (বেলা), ইন্সটিটিউট অব আর্কিটেক্টস বাংলাদেশ (আইএবি), নিজেরা করি এবং পরিবেশ বাচাও আন্দোলন ডেভেলপারদের বিরুদ্ধে সম্পদ সংরক্ষন আইন ১৯৭২ অনুযায়ী হায়কোর্টে মামলা করে। এই মামলা অনুসারে একজন ব্যক্তি নিজের অধিকারে ৩৩একর জমির বেশি রাখতে পারবে না এবং কৃষি জমির ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ২০ একর। আবাসিক প্রকল্পের জন্য ৪৩.১১ একর জমির অনুমতি ছিল। ডেভেলপার কোম্পানীগুলো নিজেদের বাঁচাতে নতুন করে পর্যালোচনার আপিল করে এবং পূর্বের মামলা খারিজ করে দেয়।

রিয়েল এস্টেট সেক্টর খারাপ দিন থেকে বেরিয়ে আসছে”

মিরাজ শামস

উৎস: সমকাল

তারিখ: ১৮ ই আগস্ট ২০১৬

অনুচ্ছেদটিতে রিয়েলস্টেট সেক্টরের উন্নতির উপরে আলোকপাত করা হয়েছে। সম্প্রতি এপার্টমেন্টের দাম ও সুদের হার কমে যাওয়ায় ফ্ল্যাট ও জমি বিক্রি বেড়ে গেছে। দূর্বল শেয়ার মার্কেট সহ অন্যান্য অনেক কারনে মধ্যবিত্তরাও এখন তাদের সম্পদের উপর বিনিয়োগ শুরু করেছে। সম্প্রতি হোম লোনের উপর সুদের হার প্রায় কমে ৯-১২% হয়েছে যেখানে পূর্বে ১৫-১৯% ছিল যেটাকে অনেক বেশি ধরা হতো। রিহ্যাব থেকে কয়েকবছর ধরে বাংলাদেশের অবিক্রিত এপার্টমেন্ট সম্পর্কে নীচের তথ্য পাওয়া গেছে।

রিহ্যাব থেকে প্রাপ্ত গত কিছু বছরের অবিক্রিত অ্যাপার্টমেন্টের পরিমান:

বছর ২০১০-২০১১ ২০১৪ ২০১৫ ২০১৬
অবিক্রিত এপার্টমেন্ট ৩০০০ (প্রায়) ১৩০০০ ২০০০০-২২০০০ ১০০০০-১২০০০

বর্তমানে বাংলাদেশে ৩০০০ এর বেশি রিয়েল এস্টেট কোম্পানী তালিকাভূক্ত। যার মধ্যে ১১৩৯টা রিহ্যাবের সদস্য। অনেক রিয়েল এস্টেট কোম্পানী নতুন নতুন প্রজেক্টের কাজও শুরু করেছে। প্রায় ৭০,০০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে এই সেক্টরে। রিয়েল এস্টেট সেক্টরের ব্যবসাতে গতি চাঙা ভাব এসেছে।

নিম্নোক্ত প্রচ্ছদটিতে বিগত চার বছর ধরে এপার্টমেন্টের স্থান অনুযায়ী দাম পরিবর্তনের তথ্য দেখানো হয়েছে:

লোকেশন প্রতি স্কয়ার ফিটে পূর্বে এপার্টমেন্টের দাম প্রতি স্কয়ার ফিটে বর্তমানে এপার্টমেন্টের দাম
মিরপুর ৪৫০০টাকা- ৭৫০০ টাকা ৩০০০ টাকা- ৫০০০টাকা
ধানমণ্ডি ১২০০০টাকা- ২০০০০ টাকা ৭০০০টাকা- ১০০০০টাকা
গুলশান ২০০০০টাকা ১২০০০ টাকা

রিহ্যাব প্রেসিডেন্ট আলমগীর শামসুল রিয়েল এস্টেট সেক্টর এর বর্তমান অবস্থা নিয়ে আশাবাদ প্রকাশ করলেন এবং বললেন রিয়েল স্টেট সেক্টরে উন্নতির চিহ্ন দেখা যাচ্ছে কিন্তু ভূমিকম্প এবং গুলশানে সন্ত্রাসী হামলায় এর গতি কমে আসতে পারে । সে সময়ে সরকারকে অনুরোধ জানান একটা স্থায়ী সুদের হার প্রণয়নে যাতে মধ্যবিত্ত এবং কম আয়ের পরিবার হাউজিং প্রকল্প গুলোতে নিজেদের টাকা বিনিয়োগ করতে আগ্রহী হয়। রিহ্যাবের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট এবং শেলটেকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব তৌফিক এম সিরাজ বলেছেন, একজন রিয়েল স্টেট ক্রেতার জন্য এপার্টমেন্টের বর্তমান দাম আগের চাইতে অনেক বেশি লাভজনক। বর্তমান অবস্থায় রিয়েল স্টেট বাজার মধ্যবিত্ত ক্রেতাদের সাধ্যের আওতায় আছে বলে তিনি জানান। কিন্তু তিনি এটাও উল্লেখ করেন, যদিও রিয়েল এস্টেট সেক্টর নানা প্রতিকূলতাকে পার করে এতোদূর এসেছে তবুও কিছু কিছু বাধা যেমন রেজিস্ট্রেশনের উচ্চ খরচসহ অন্যান্য বিষয়গুলোও এখনো সমস্যা সৃষ্টি করছে।

রিহ্যাবের ভাইস প্রেসিডেন্ট লিয়াকত আলী ভুইয়া সমকালকে অন্যান্য প্রাইভেট ব্যাংকের মত সরকারী ব্যাংকগুলো থেকে কম সুদের হারে ঋণ দেবার প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে জানিয়েছেন। এছাড়াও তার মতে কালো টাকা যদি কোন রকম জিজ্ঞাসাবাদ ছাড়াই রিয়েল স্টেটে বিনিয়োগ করার সুযোগ থাকে তাহলে এই সেক্টর সহজেই চাঙা ভাব ফিরে পেতে পারে।

রিহ্যাব ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং হার্ব গ্রপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মাদ আহকাম উল্লাহ জানিয়েছেন জমি মালিকদের সাথে যৌথ প্রোজেক্টে টাকা বিনিয়োগের হার কমে যাওয়ায় এপার্টমেন্টের দাম কমে গেছে। উদাহরণ দিয়ে বলেন, গুলশান বারিধারায় চুক্তিনামা করতে পূর্বমূল্য যেটা ছিল ৩-৫ কোটি টাকা সেটা এখন কমে দাড়িয়েছে ২৫-৩০ লাখে। ফলে হার্ব গ্রুপ সহ অন্যন্য ডেভেলপাররা নতুন নতুন প্রকল্পের কাজ শুরু করতে পারছে। বর্তমানে তাদের ৬টি প্রজেক্টের কাজ চলছে এবং দুটো পাইপলাইনে আছে।

বিশ্বাস বিল্ডার্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব নজরুল ইসলামও সমকালের সাথে কথা বলার সময় রিয়েল এস্টেট সেক্টরের বর্তমান অবস্থা নিয়ে আশাবাদ জানিয়েছেন এবং তিনি জানিয়েছেন প্লট বিক্রি গত বছরের তুলনায় এ বছর ১০% বেশি বেড়ে যেতে পারে। তিনি সমকালকে ২০১২ থেকে চলে আসা খারাপ সময়ের কথা উল্লেখ করে জানান অবশেষে বাংলাদেশ এই সেক্টরে আশার আলো দেখতে পাচ্ছে। প্লাটিনাম গ্রুপের ম্যানেজার নাজমুল আহসান জানিয়েছেন যদিও রিয়েল এস্টেট সেক্টরে অনেক উন্নতি ঘটেছে তবুও সেটা এখনো সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছায়নি। তিনি আরও বলেন, এই সেক্টরের অনুন্নত বাজার ব্যবস্থাপনার ফলে পূর্বাচলে জমি উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য অনেক ডেভেলপার তাদের ব্যবসা বন্ধ করে দিয়েছে। আগে যেখানে ৫৬ টা কোম্পানী ছিলো এখন সেটা কমে ১২তে নেমেছে।

“বিনিয়োগকারীরা আপনার অপেক্ষায়”

সানাঊল্লাহ সাকিব

উৎস: প্রথম আলো

তারিখ: ২রা সেপ্টেম্বর,২০১৬

এই অনুচ্ছেদে অ্যাপার্টমেন্টের দাম কমে যাওয়ার ফলে অর্থ বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর কম সুদে হোম লোন প্রদানের ব্যাপারে আলোকপাত করা হয়েছে। অনেকদিন ধরে রিয়েল এস্টেট সেক্টর একটি সুপ্ত অবস্থার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে ফলে এপার্টমেন্ট এর দাম কমে গেছে। এমনকি অর্থ বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানগুলো হোম লোনের উপর সুদের হার কমিয়ে সেটা একক সংখ্যায় নিয়ে এসেছে।

আইডিএলসি ডিপার্টমেন্ট এর ভোক্তা পর্যায়ের জেনারেল ম্যানেজার সায়েদ জাভেদ নূর বলেছেন মধ্যবিত্ত ঘরের অধিকাংশই এখন নিজস্ব একটা বাড়ির স্বপ্ন দেখে। তিনি বলেন, যে ব্যক্তি মাসে এখন ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা ইনকাম করে সেও ধানমন্ডি বা মোহাম্মাদপুরে ৯০০-১০০০ স্কয়ার ফিটের এপার্টমেন্ট কিনতে পারবে।

বিভিন্ন ব্যাংক যেমন স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক, আইএফআইসি, ব্রাক সহ সবগুলো ব্যাংকই এপার্টমেন্ট কেনার জন্য এখন ৭০% পর্যন্ত হোম লোন দিচ্ছে। এই কারনে রিয়েল এস্টেট কোম্পানীগুলোতে আরো বিনিয়োগের সুযোগ বাড়ছে।

২০১৫ এর জানুয়ারীতে বাংলাদেশ ব্যাংক হোম লোনের পরিমান বাড়িয়ে এক কোটি থেকে ১ কোটি ২০ লাখ পর্যন্ত করেছে (তফসিলভূক্ত ব্যাংকের জন্য)। এই লোন এবং নিজস্ব টাকার অনুপাত দাড়াচ্ছে ৭০:৩০ অর্থাৎ কেউ এক কোটি টাকা মুল্যের বাড়ি কিনতে চাইলে সে ব্যাংক থেকে সর্বোচচ ৭০ লাখ টাকা পর্যন্ত লোন নিতে পারবে আর বাকি ৩০ লাখ নিজেকে দিতে হবে।

এই অনুচ্ছেদ অনুযায়ী বিভিন্ন উৎস এটাই বলছে যে, ন্যাশনাল হাইজিং ফিন্যান্স এন্ড ইনভেস্টমেন্ট এবং ডিবিএইচ হোম লোনের দিকে যথেস্ট মনোযোগ দিয়েছে এবং যথাক্রমে ৯০০ ও ১০০০ কোটি টাকা লোন বিতরন করেছে।

যদিও বেশিরভাগ আর্থিক প্রতিষ্ঠানই অনেকদিন যাবত অর্থ যোগান দিচ্ছে কিন্তু সম্প্রতি সুদের হার কমেছে। প্রথম উদ্দোক্তা ছিল আইএফআইসি ব্যাংক যারা ২০১৫ এর জানুয়ারীতে ১১.৯৫% সুদের হার অফার করেছিলো যেখানে অন্যান্য বেশির ভাগ ব্যাংকগুলোই প্রায় ১৫% এর উপরে উচ্চহারে সুদ নিয়ে আসছিলো। এক বছরের ভিতরে সেটা কমে দাড়ালো ৯.৯৯% এ, এবং অধিকাংশ ক্ষেত্রেই লোন নিতো বাড়ির মালিক,চাকুরীজীবি এবং ব্যবসায়ী।

আইএফ আইসি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহ আলম পূর্বের উচ্চ সুদের হার সম্পর্কে প্রথম আলোকে জানান, এটি ফ্ল্যাট কেনা বেচার জন্য বাধাস্বরূপ ছিল। ভোক্তাদের কথা চিন্তা করেই ব্যাংকগুলো সুদের হার কমিয়ে এনেছে এবং তারা এটার জন্য ইতিবাচক ফলাফল পাচ্ছে। ফলে দেখা যাচ্ছে রিয়েল এস্টেট সেক্টর আবার গতিশীল হয়েছে।

প্রথম আলোর রিপোর্টার মতিঝিলের প্রাইম ব্যাংকে আসা একজন বেসরকারি কর্মকর্তার সাথে কথা বললে ওই কর্মকর্তা জানান “যেহেতু এখন চাকরী করছি তাই আমিও একটা এপার্টমেন্ট কিনতে চাই, এজন্য ব্যাংকে এসেছি লোনের ব্যাপারে তথ্য জানতে। একটা সময়ে যখন সুদের হার বেশি ছিল তখন সাহস হারিয়ে ফেলেছিলাম, আর এখন ফ্ল্যাটের দামও কম সাথে সুদের হার কম হওয়ায় নতুন করে এপার্টমেন্ট কেনার কথা ভাবছি। ব্যাংক ও এখন লোন দিতে আগ্রহী।”

প্রতিবেশী দেশগুলোর রিয়েল এস্টেট খাতের খবর

“রিয়েল স্টেট সেক্টরের পূনর্জীবনী এখন সরকারের প্রধান লক্ষ্য।” -রবি শঙ্কর প্রসাদ

রবি তেজা শর্মা, ইটি ব্যুরো

উৎস: The Economic Times

তারিখ: ১৯শে আগস্ট, ২০১৬

ইন্ডিয়ার আইন,বিচার, ইলেক্ট্রনিক্স এবং আইটি মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী জানিয়েছেন সরকার রিয়েল স্টেট এবং কন্সট্রাকশন সেক্টরের উন্নতির জন্য প্রণোদনা দিতে উৎসাহী তবে সেক্ষেত্রে ভোক্তাদের জন্য মান না কমিয়ে দাম কমাবার উপর গুরুত্ব দিতে হবে। প্রসাদ বলেছেন যদিও ৯০% ইন্ডিয়ান ডেভেলপার প্রত্যয়যোগ্য কিন্তু কিছু এখনো আছে যারা এখনো পেছনে পড়ে আছে। সবাইকে নতুন করে পুনরুজ্জীবিত হয়ে তাদের কাজ যথাযথ ভাবে করার মাধ্যমে ক্রেতাদের বিশ্বাস অর্জন করতে হবে। জাতীয় রিয়েল স্টেট কাউন্সিলের একটি কনফারেন্সে প্রসাদ জানান, রিয়েল স্টেট এবং কন্সট্রাকশন সেক্টরের উন্নয়নের উদ্দেশ্যে কিছু গঠনমূলক পলিসি গ্রহন করা হয়েছে এবং ভবিষ্যতে তা অব্যাহত থাকবে যদি তারা পরিকল্পনা মেনে কাজ করতে পারে।

ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট ফর ট্রান্সফরমিং ইন্ডিয়ার সিইও অমুতাভ কান্ত একটি নতুন প্রকল্পের কথা বলেছেন যেটা ইন্ডিয়াতে হাউজিং প্রকল্পগত সকল চাহিদা পুরণ করবে এবং সাথে আথে কন্সট্রাকশন কোম্পানীগুলোর উন্নয়নেও সাহায্য করবে। পুরো ইন্ডিয়াকে শহরে পরিনত করতে সাহায্য করবে এই প্রকল্প। এখন পর্যন্ত গ্রামীন উন্নয়নের দিকেই বেশী নজর দেয়া হয়েছে তাই তিনি বলেছেন শহরের পরিকল্পনার দিকেও নজর দিতে হবে।

“ইপিএফও সাবস্ক্রাইবারদের জন্য সরকারের নতুন কম খরচের আবাসন স্কিম”

পিটিআই (প্রেস ট্রাস্ট অব ইন্ডিয়া)

উৎস: The Economic Times

তারিখ: ২১শে আগস্ট, ২০১৬

অনুচ্ছেদটিতে আলোকপাত করা হয়েছে মূলত নতুন পরিকল্পনার উপর যার মাধ্যমে এমপ্লয়ি প্রভিডেন্ট ফান্ড অর্গানাইজেশন (ইপিএফও) যেটি ইন্ডিয়ার অবসরকালীন ফান্ড সাবস্ক্রাইবারদের তাদের নিজেদের ক্ষমতার মধ্যে বাড়ির ব্যবস্থা করা হবে। ঘোষণাটি এসেছিলো শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রী বান্দারু দত্ততেজ্যর কাছ থেকে।

মন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন যে, এই স্কিমটি পিএফ সদস্যদের তাদের সদস্যপদ বহাল রাখার জন্য উৎসাহিত করবে। তিনি চান যেন এসব সদস্যরা তাদের প্রভিডেন্ট ফান্ড ব্যবহার করে স্থায়ী সম্পদ কিনতে পারবে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে তাদের পছন্দ অনুযায়ী স্থানে বাড়ি কিনতে তারা সক্ষম হবে। তিনি আশা প্রকাশ করেন তার এই পরিকল্পনার মাধ্যমে ইন্ডিয়ার সমস্ত নাগরিকের বাসস্থানের ব্যবস্থা নিশ্চিত হবে।