What is happening in the Real Estate Market of Bangladesh? September 2016 Update

Read on to find the overall review of the real estate sector of the country collected from various dailies.

“ Interest of buyers growing in flat purchase”

By: SubhankarKarmakar

Source: ProthomAlo

Date: 2 September 2016

The article reports on growing demand for apartments in the real estate sector of Bangladesh. It focuses on thecurrent status of real estate market as well as predicaments faced by the sector.
According to a REHAB Survey, 209 real estate companies have sold 11,165 flats within a span of four years from 2010-2014 and 7,889 flats have been handed over to apartment owners. The financial amount of these apartments amounts to Tk. 5651 crore. Currently, REHAB has 1222 members so realtors perceive number of apartments sold to be multifold. However, realtors state that despite great demand, sale is low.

The article cites high land price to be the main cause for high apartment price. To make apartments affordable to common people, the registration fee has to be reduced. REHAB leaders had asked Government to create investment fund for providing home loan with low-interest rate so buyers can easily purchase a flat but to no avail. Mr. Alamgir Shamsul Alamin, REHAB President expressed dissatisfaction at Government’s negligence to the sector.

SohelRana, Managing Director of BOCL (Bengal One Creation Ltd.) and Vice President of REHAB also agreed that high land price and high registration fee have increased apartment price. He stated an apartment in Dhanmondi costs Tk. 22-28 lacs for registration and profit for selleris severely low. He further added due to lack of sales, many companies are unable to take up new projects.As a result in future even if demand is high, supply will not be able to keep up the pace. For this, he urged the Government to take steps to revive the sector.

According to the article, a 1000sqft apartment in Dhaka will cost a minimum amount of Tk. 35 lacs. Additionally,registration fee of Tk. 4 lacs and gas-electricity connection of Tk. 5 lacs will be required. If an apartment buyer takes a home loan of Tk. 30 lac at an interest rate of 9% with tenure of 20 years, he would have to pay Tk. 27,000 per month as installment. Realtors commented that most people can’t afford Tk. 25,000 –Tk. 30,000 as monthly installment and on the other hand, apartment price in Dhaka cannot be further reduced due to shortage of land. Realtors suggested that there is scope for development on the outskirts of Dhaka such as Savar, Keranigonj, Gazipur, Narsingdi, Narayanganj etc as land price is lower over there. REHAB Vice President Liakot Ali Bhuiyan commented that satellite towns have to be developed in the outskirts of Dhaka with civilian facilities to combat housing crisis in Dhaka.

“What is the apartment price in different locations?”

By: Rajib Ahmed

Source: ProthomAlo

Date: 2 September 2016

The article talks about apartment price in different locations of Dhaka and Chittagong. It informs about the variations in apartment price in different parts of the cities.

The article states apartment price in the capital city varies greatly with location. With the amount it takes to buy an apartment in a luxurious area, a buyer can get 3 or 4 flats in other locations. Although upper-class people can afford an apartment anywhere, the middle-income people needs to research apartment price based on locations, recommends the author.

The article cites Mirpur, Uttara, Sabujbag, Bashabo, Banasree, Khilgaon as zones of comparatively lower apartment prices. Apartment price per sqft in these areas ranges from Tk. 3,500 – Tk. 4,000. For higher ranged apartments, the price is Tk. 5,000- Tk. 7,000 per sqft.

Also, in some areas of Dhanmondi, Bashundahara R/A, Mohammadpur, Eskaton, Shegunbagicha, the apartments are in medium price range. To avail apartments in these locations with wide roads,apartment buyers have to spend Tk. 7,000 – Tk.10,000 persqft. And in Gulshan, Baridhara, Dhanmondi Lakeside and some areas of Banani, the price is above Tk. 15,000 per sqft.

However, apart from the location, other factors also play important role in apartment pricing. These factors are developer company reputation, neighborhood, road size, architectural design etc.

The article further states that irrespective of location, if the entry road is narrow, apartment price will also be low. Apartment features and amenities such as swimming pool, playground, and front space substantially raise the apartment price.

The author asks prospective buyers to consider what kind of flat they are looking for and how much they are willing to spend. He also suggests that now is the right time to buy since real estate sector of the country is currently in a good position with low-interest home loans, stable political conditions and stable market price prevailing to facilitate apartment buying.

To make a sound investment, buyers can get anidea about market price by contacting developer companies as well as financial institutions providing home loan. Responsibleofficial of sales division of Eastern Housing, Md. Farhaduzzaman stated to ProthomAlo that construction price is similar in all locations but pricing differs due to variation in land price. If the land price is low, apartment price will also be low and vice-versa.

According to data, the apartment prices in various locations are as follows:

Location

Subdivision of location

Apartment Price per Sqft

Mirpur

With car passage road

Tk 5,000 and above

Further from main street

Less than Tk 5,000

Dhanmondi Road 6, 7, 8, 9 and R/A Tk 9,000 – Tk 16,000
Dhanmondi Lakeside Above Tk 15,000
Gulshan North Gulshan Above Tk 20,000
Niketon Tk 8,000- Tk 10,000
Others Around Tk 15,000
Banani Prime locations Above Tk 15,000
Others Around Tk 10,000
Bashundhara R/A Tk 4,000- Tk 8,000
Old Town Wari Tk 8,000- Tk 10,000
Lakhibazar Tk 6,000 – Tk 8,000
Shamibag Tk 4,000- Tk 5,000
Narinda Tk 4,000- Tk 5,000

However, in Chittagong, the apartment price is not as high as in Dhaka. Abu SayeedChoudhury, Director of ABC Holdings stated one can avail an apartment within Tk. 3,000- Tk. 9,000 per sqft according to the location in Chittagong. The apartment price is a bit high in South Khulshi, Nasirabad,Hillview, Jamalkhan, Nandankanan, Chatgaon but in other areas, one can get quality apartments within Tk. 4,000- Tk. 6,000 per sqft.

“Apartment sale increases in Chittagong but real estate market still slow”

By: MasudMilad

Source: ProthomAlo

Date: 2 September 2016

The article highlights the condition of Chittagong real estate market in Bangladesh.

Although apartment sale has increased this year, the market is still sluggish according to real estate entrepreneurs. In Chittagong, the real estate sector had started developing from 2008 during which a lot of seasonal entrepreneurs entered the market. Due to increased competitiveness,land price increased. Also, landowners started taking huge amount as signing money which increased property price. Despite these circumstances due to loan availability and cash flow, demand still persevered.

In 2012, the scenario reversed due to stock market crash which stalled cash flow. As a result, developers could not complete projects on time. This caused a dent in the trust of buyers. According to sources, REHAB enlisted companies in Chittagong had about 5,000 unsold apartments and this number could be more if companies outside REHAB membership are taken into account.

REHAB Vice President and Chittagong Local Committee’s Chairman, Abdul KayuumChowdhury stated to ProthomAlo that although apartment sale has increased, without government support the sector cannot be fully revived. He further added despite low-interest rate prevailing in the market, sale would not accelerate due to high registration cost. He suggested if government creates special investment fund for home loan with 7% interest rate, it will greatly boost the real estate sector of the country.
Entrepreneurs stated apartment price has reduced by 20%-25% in the last 1.5 year. According to data, here is the change in apartment price in various locations of Chittagong.

Location Apartment Price Per Sqft Before Apartment Price Per Sqft Now
Nasirabad Tk 11,000 Tk 8,000- Tk 8,500
College Road Tk 6,000- Tk 7,000 Tk 5,000
Panchlaish Tk 8,000 – Tk 9,000 Tk 7,000
OR Nizam Road Tk 8,000 – Tk 9,000 Tk 7,000

Realtors commented that the real estate in Chittagong is dominated by high income and middle-incomebuyers which mostly include business people and high-paid officials. The article further mentions that middle-income people as well as expatriates in Middle- East are not so keen on investing in real estate due to lack of trust. If the reliability of the sector could be highlighted,then there would be more interested buyers.

Managing Director of Finlay Properties Ltd, Mofakkharul Islam stated that flat price is now at its lowest. However, developers in Chittagong are not that keen on taking many new projects as buyers’ responsein the market is lethargic.

Commenting on developer companies in Chittagong, realtors stated that although there are 98 REHAB members in Chittagong, 200 more companies exist without REHAB membership. But only 10-12 of them are leading real estate companies. And almost 60%-70% of the seasonal entrepreneurs who had established companies after the rise of Chittagong real estate have left the market according to leading realtors.

“Real estate sector is improving”

Interview of Managing Director of National Housing Finance and Investments Ltd, Md. Khalilur Rahma

By: SujoyMohajon

Source: ProthomAlo

Date: 2 September 2016

The interview focused on thecurrent real estate market condition of Bangladesh as well as home loan, interest rate etc.

Commenting on the current real estate scenario of Bangladesh, Mr.Khalilur Rahman stated to ProthomAlo that real estate market has suffered from 2010 till 2015 after stock market crash in 2010. He stated as per REHAB data there were 10,000 and 15,000 unsold apartments in 2014 and 2015 respectively. However, this year, thesituationhas improved and one of the main reasons for it is the low-interest rate on home loans. Previously the interest rate which used to be 16-17% has now reduced to less than 10%. Moreover, the previous slow real estate market had lowered apartment pricing for which interest among middle-income people has increased, consequently increasing demand for home loans.

When asked about the interest rate at which National Housing Finance and Investments Ltd. is providing home loan, MrKhalilur replied the institution is providing home loan with interest as low as 10%. In real estate sector, the company offers loan for home construction, apartment purchase, land purchase as well as SME loan and lease financing. The interest rate for these loans ranges from 10%-12%. He further added out of total loan amount, 80%-85% is for real estate sector and job holders are the priority consumers. He stated that people from various careers starting from government officers to bankers to doctors are keen on applying forloan. Usually loan amount is approved based on financial solvency of applicant. He stated a salaried employee earning Tk. 60,000 – Tk. 80,000 per month can avail loan of up to Tk. 30 lac to Tk. 32 lac with tenure of 15-20years but if the person taking loan is within 30-35 years of age, he can repay the debt until he turns 65.

Commenting on the financial constraint of middle-income people to buy a home, MrKhalilur Rahman stated that to provide housing for all,government has to step up. Low registration fee and investment fund with low-interest rate on home loan can facilitate affordability of middle-income for flat purchase. Right now his financial institution has interest rate of 7% on savings and distributes loan at interest rate 10%. He also stated that bad loans are another reason due to which interest rate is high. In banking and related industries, the percentage of bad debts is up to 10%. With some changes, this amount can be brought down to 1-2%.

In the interview, he also spoke about financial solvency of National Housing Finance and Investments Ltd. He stated in 2015, the institution distributed loan amount of Tk. 280 crore and this year the amount might extend beyond Tk. 400 crore. Speaking on upcoming loan facilities, MrKhalilur Rahman highlighted about providing group home loan facility through which loans can be availed for buying plot as well as constructing buildings. He also stated the company has plans to open new branches and booths in addition to the existing ones.

“bProperty real estate portal goes live in Bangladesh”

By: Cathy Anderson

Source: http://www.propertyportalwatch.com

Date: 2 September 2016

The writing announces the launch of a new real estate portal in Bangladesh, bproperty.com. The portal has been initiated by Emerging Market Group which also owns two other portals in Pakistan and Dubai – zameen.com and bayut.com respectively.

The new site caters to Bangladeshi real estate consumers. The website launching was announced at a property portal watch press conference held in June this year. Shiftaur Rahman who is the Managing Director of the bproperty quoted to Dhaka Tribune stating the site will make apartment buying, selling and renting easier. He also added that several services are in the pipeline to aid apartment buyers, apartment owners and tenants.

“Construct buildings according to rules”

By: Mosabber Hossain

Source: ProthomAlo

Date: 3 September 2016

The article highlights the importance of maintaining rules and regulations in constructing building structures. It also stretches on the issue of building earthquake resistant structures to make them safe.

A research conducted by House Building Research Institute revealed that collapse of building structures in Bangladesh mostly occurs due to faulty apartment design. The research also showed that most buildings are constructed without asoil test and consideration of earthquake stability.

President of Earthquake Society, Professor Jamilur Reza Chowdhury commented that earthquakes are such a kind of natural disasters for which we can never be adequately prepared unless and until buildings are properly constructed. When building structures, construction planning, procedure and implementation of rules and regulations are of utmost importance.

General Secretary of Bangladesh Earthquake Soceity, Md. Abu Siddik stated improper architectural design, construction of buildings without soil test and failure to make buildings earthquake resistant as main reasons of building collapse. He further commented that in locations of Dhaka city with hard soil and soft soil, structures should be designed so that they are able to withstand earthquakes of magnitude 7.0 and 9.0 respectively. The earthquake magnitude is basically the energy released where earthquake begins. He suggested that geo-structural engineers need to perform soil test prior to building design to ensure safety. Then architects, civil engineers, electrical and mechanical engineers all need to contribute towards designing of an ideal structure.

The article also advises not to be restricted to the design element of architecture. In this regard Bangladesh Engineers’ Institution President Engr. M ShamimuzzamanBosunia quoted “Many people when constructing buildings listen to construction workers instead of expert engineers to save cost, and sometimes engineers limit their responsibility to design approval and do not check whether construction work is being done according to approved design.” He further added that no building can be completely earthquake- proof but it has to be constructed so that it can withstand earthquakes for prolonged periods. He recommended that important construction factors such as use of rods, rings as well as appropriate beam construction, column size should be inspected by professional engineers.

Professor Jamilur Reza Chowdhury elaborating on the topic stated that in our country,involvement of architects and engineers is minor in construction work. RAJUK engineers who give approval for structures in Dhaka need to be more alert. He suggested professional engineers should be more involved in construction and not just owners and construction supervisors to ensure quality construction work

Brac Bank inks accord with real estate developer”

By: Chittagong Bureau

Source : The New Nation

Date: 19 September 2016

The writing announces the tie-up of BracBank with JumairaHolidings, a real estate developer company in Chittagong to facilitate home loans.

According to the agreement, the bank will provide privileged offer to consumers of the developer company including special interest fees and processing charges. In the signing ceremony, Head of Retail Sales of BRAC Bank,Kyser Hamid and Managing Director of Jumairah Holdings Ltd, M Shahjahan signed the agreement on behalf of their respective organization.

******************************************************************************************

বর্তমানে দেশের আবাসন খাতে কী ঘটছে? সেপ্টেম্বর, ২০১৬

অনুবাদক: আসহাব-উল-ইসলাম শান্ত

বিস্তারিত জানতে বিভিন্ন দৈনিক থেকে সংগৃহিত অনুচ্ছেদগুলো পড়ুন:

 

ফ্লাটে আগ্রহ বাড়ছে

শুভংকর কর্মকার

উৎস: প্রথম আলো

তারিখ: ০২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

এই অনুচ্ছেদে বাংলাদেশের আবাসন খাতে অ্যাপার্টমেন্টের বর্ধিত চাহিদার কথা বলা হয়েছে।

রিহাবের তথ্য অনুসারে, ২০৯টি আবাসন প্রতিষ্ঠান ২০১০ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত ঢাকায় ১১ হাজার ১৬৫টি অ্যাপার্টমেন্ট বিক্রি করেছে, ৭ হাজার ৮৮৯টি অ্যাপার্টমেন্ট ক্রেতাদের কাছে বুঝিয়ে দিয়েছে। এসব ফ্ল্যাটের আর্থিক মূল্য ৫ হাজার ৬৫১ কোটি টাকার মতো। রিহ্যাবের বর্তমানে সংগঠনটির সদস্যসংখ্যা ১ হাজার ২২২, ফলে সব সদস্যের অ্যাপার্টমেন্ট বিক্রির সংখ্যা কয়েক গুণ হবে বলে মনে করেন সংগঠনটির নেতারা। অবশ্য আবাসন খাতের ব্যবসায়ীরা বলছেন, প্রচুর চাহিদা থাকা সত্ত্বেও অ্যাপার্টমেন্ট বিক্রি কম হচ্ছে।

অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ঢাকায় জমির উচ্চমূল্যের কারণে ফ্ল্যাটের দাম বেড়ে গেছে। এসব অ্যাপার্টমেন্ট সাধারণ মানুষের নাগালের মধ্যে আনতে হলে নিবন্ধন ফি কমাতে হবে। রিহ্যাব নেতারা সরকারি উদ্যোগে গৃহঋণের জন্য স্বল্পসুদে বিশেষ তহবিল গঠন করার জন্য সরকারকে অনুরোধ করেছেন যাতে ক্রেতারা সহজে অ্যাপার্টমেন্ট ক্রয় করতে পারেন। রিহ্যাব প্রেসিডেন্ট জনাব আলমগীর সামসুল আলামিন এই খাতে সরকারের অবহেলায় অসন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন।

বিওসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও রিহ্যাবের সহসভাপতি সোহেল রানা মতেও জমির উচ্চমূল্য ও উচ্চ নিবন্ধন ফির কারণে ফ্ল্যাটের দাম বেড়ে গেছে। তিনি বলেন, ধানমন্ডির একটি অ্যাপার্টমেন্ট নিবন্ধন করতে গেলে ২০-২২ লাখ টাকা লাগে কিন্তু মুনাফা খুবই কম। সোহেল রানা আরও বলেন, বেচাবিক্রি কম থাকায় আবাসন প্রতিষ্ঠানগুলো নতুন প্রকল্প নেওয়া কমিয়ে দিয়েছে। এতে ভবিষ্যতে ফ্ল্যাটের চাহিদা বাড়লেও জোগানের বাড়বে না। তিনি আবাসন খাতে পূনর্জাগরন ঘটানোর জন্য সরকারকে পদক্ষেপ গ্রহনের আহবান জানিয়েছেন।দ

অনুচ্ছেদটি অনুসারে, ঢাকায় ১ হাজার বর্গফুটের একটি অ্যাপার্টমেন্ট ক্রয়ের খরচ সর্বনিম্ন ৩৫ লাখ টাকা। তার সঙ্গে যুক্ত হবে নিবন্ধন ফি প্রায় সাড়ে ৪ লাখ টাকা ও গ্যাস-বিদ্যুতের মতো আনুষঙ্গিক সেবার জন্য ৫ লাখ টাকা। এই অ্যাপার্টমেন্টটি কিনতে কোনো ক্রেতা যদি ৩০ লাখ টাকা ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে সর্বনিম্ন ৯ শতাংশ সুদে ঋণ নেন এবং সেটি ২০ বছরে পরিশোধ করতে চান, তাহলে প্রতি মাসে তাঁকে প্রায় ২৭ হাজার টাকার মতো কিস্তি দিতে হবে। আবসান খাতের ব্যবসায়ীদের মতে, অধিকাংশ মানুষ মাসে ২৫,,০০০-৩,,০০০০ মাসিক কিস্তি বহনের সক্ষমতা নেই এবং অন্য দিকে জমির স্বল্পতার কারনে ঢাকায় অ্যাপার্টমেন্টের দাম আর কমানো সম্ভব নয়। তাদের মতে ঢাকার আশেপাশের এলাকা যেমন সাভার, কেরানীগঞ্জ, গাজীপুর, নরসিংদী ও নারায়নগঞ্জ এলাকায় প্রকল্প গ্রহনের সুযোগ আছে কারন ঐ এলাকাগুলোতে জমির দাম কম। রিহ্যাবের সহসভাপতি লিয়াকত আলী ভূঁইয়া বলেন, ভবিষ্যতে আবাসন সংকট মোকাবিলা করতে হলে ঢাকার আশপাশে নাগরিক সুবিধাসহ স্যাটেলাইট শহর গড়ে তুলতে হবে।

ফ্ল্যাটের দাম কোথায় কেমন?”

রাজীব আহমেদ

উৎস: প্রথম আলো

তারিখ: ০২ সেপ্টেম্বর ২০১৬

এই অনুচ্ছেদে ঢাকা ‍ও চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকায় ফ্ল্যাটের দাম সম্পর্কে বলা হয়েছে। শহরের বিভিন্ন এলাকায় দামের যে তারতম্য তা তুলে ধরা হয়েছে।

এলাকাভেদে অ্যাপার্টমেন্টের দামের বিশাল তারতম্য এই অনুচ্ছেদে তুলে ধরা হয়েছে। ঢাকার অভিজাত এলাকায় একটি অ্যাপার্টমেন্ট কিনতে যে পরিমাণ অর্থ ব্যয় করতে হয়, তা দিয়ে ক্রেতা অন্য এলাকায় তিন-চারটি অ্যাপার্টমেন্ট কিনতে পারবেন। যাঁদের আর্থিক সক্ষমতা বেশি তাদের কথা ভিন্ন কারন পছন্দ হলে তাঁরা যেকোনো এলাকাতে অ্যাপার্টমেন্ট কিনতে পারেন। লেখকের মতে, মধ্যম আয়ের মানুষকে এলাকাভিত্তিক দামের খোঁজটি নিতে হবে।

অনুচ্ছেদটি বলা হয়েছে মিরপুর, উত্তরা, সবুজবাগ, বাসাবো, বনস্রি, খিলগাঁও এলাকাগুলোতে অ্যাপার্টমেন্টের দাম অপেক্ষাকৃত কম। এই এলাকাগুলোতে অ্যাপার্টমেন্টের দাম প্রতি স্কয়ার ফিট ৩,৫০০-৪,,০০০ টাকা। উচ্চমূল্যের অ্যাপার্টমেন্টেগুলো প্রতি স্কয়ার ফিট ৫,,০০০-৭,,০০০ টাকা।

এছাড়া, রাজধানীর ধানমন্ডির কিছু এলাকা, বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা, মোহাম্মদপুর, ঢাকার ইস্কাটন, সেগুনবাগিচাসহ কিছু এলাকায় অ্যাপার্টমেন্টের দাম মধ্যম পর্যায়ে। এসব এলাকায় ভালো লোকেশন ও চওড়া রাস্তার পাশে অ্যাপার্টমেন্ট কিনতে ব্যয় করতে হবে স্কয়ার ফিট প্রতি ৭ থেকে ১০ হাজার টাকা। গুলশান, বারিধারা, ধানমন্ডি লেকের পাশে ও বনানীর কিছু এলাকায় অ্যাপার্টমেন্ট কিনতে গেলে প্রতি বর্গফুট ১৫ হাজার টাকার বেশি দাম দিতে হবে।

তবে ফ্ল্যাটের দাম কত হবে, তা অনেক কিছুর ওপর নির্ভর করে। এই বিষয়গুলো হল নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের সুনাম, ভবনের অবস্থান, এলাকার পরিবেশ, রাস্তার আকার, নির্মাণশৈলী ইত্যাদি।

অনুচ্ছেদে আরও বলা হয়েছে ভবন যে এলাকায়ই হোক, প্রবেশের রাস্তা সরু হলে ফ্ল্যাটের দাম কম হয়। খেলার মাঠ, সম্মুখে প্রশস্ত জায়গা, সুইমিংপুলসহ বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা থাকলে ভবনের ফ্ল্যাটের দাম অনেক বেশি পড়ে।

লেখক সম্ভাব্য ক্রেতাদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, সার্বিকভাবে আপনাকে বিবেচনা করতে হবে, আপনি কী ধরনের অ্যাপার্টমেন্ট চান, আর কত টাকা ব্যয় করতে ইচ্ছুক। তিনি আরও বলেছেন, সবকিছু মিলে গেলে অ্যাপার্টমেন্ট বুকিং দেওয়ার এখনই সময় কারণ স্বল্পসুদে হোম লোনের প্রাপ্যতা, স্থিতিশীল রাজনৈতিক অবস্থা ও আবাসন খাতের বাজার ভালো।

কয়েকটি আবাসন কোম্পানি ও ঋণদাতা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যোগাযোগ করে ঢাকার কোন এলাকায় ফ্ল্যাটের দাম কেমন, সে সম্পর্কে একটি ধারণা পাওয়া যায়। জানতে চাইলে ইস্টার্ন হাউজিংয়ের বিপণন বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. ফরহাদুজ্জামান প্রথম আলোকে বলেন, ঢাকার সব এলাকায় নির্মাণ খরচ প্রায় সমান। তবে ফ্ল্যাটের দাম নির্ভর করে জমির দামের ওপর। যেসব এলাকায় জমি পাওয়া যায় এবং দাম তুলনামূলক কম, সেখানে ফ্ল্যাটের দামও কম।

বিনিয়োগকে নিরাপদ করার জন্য ক্রেতা ডেভেলপার কোম্পানী এবং লোন দেয় এমন প্রতিষ্ঠানগুলোর সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। ইস্টার্ণ হাউজিং এর দায়িত্বপ্রাপ্ত বিপনণ কর্মকর্তা মো: ফরহাদুজ্জামান প্রথম আলোকে বলেন, সব এলাকাতেই নির্মান ব্যায় প্রায় সমান কিন্তু জমির দামের কারনে অ্যাপার্টমেন্টের দাম উঠানামা করে। জমির দাম কম হলে অ্যাপার্টমেন্টের দাম কমবে এবং বাড়লে দামও বাড়বে।

তথ্য অনুসারে বিভিন্ন এলাকায় অ্যাপার্টমেন্টের মূ্ল্য নিম্নরূপ:

এলাকা এলাকার প্রকারভেদ অ্যাপার্টমেন্টের মূল্য প্রতি স্কয়ার ফিট
মিরপুর গাড়ি প্রবেশের রাস্তাসহ ৫,,০০০ টাকা এবং এর বেশী
প্রধান সড়ক থেকে দুরে ৫,,০০০ টাকার কম
ধানমন্ডি রোড: ৬, ৭, ৮, ৯ এবং আ/এ ৯,,০০০-১৬,,০০০ টাকা
ধানমন্ডি লেক সাইড ১৫,,০০০ টাকার বেশী
গুলশান উত্তর গুলশান ২,,০০০০ টাকার বেশী
নিকেতন ৮,,০০০-১,,০০০ টাকা
অন্যান্য ১৫,,০০০ টাকার মধ্যে
বনানী প্রধান এলাকা ১৫,,০০০ টাকার বেশী
অন্যান্য ১,,০০০০ টাকার মধ্যে
বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা ৪,,০০০-৮,,০০০ টাকা
পুরান ঢাকা ওয়ারী ৮,,০০০-১,,০০০০ টাকা
লক্ষ্মীবাজারে ৬,,০০০-৮,,০০০ টাকা
স্বামীবাগ ৪,,০০০-৫,,০০০ টাকা
নারিন্দা ৪,,০০০-৫,,০০০ টাকা

অন্যদিকে বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রামে ফ্ল্যাটের দাম ঢাকার মতো বেশি নয়। এবিসি হোল্ডিংসের পরিচালক আবু সাঈদ চৌধুরী বলেন, যে কেউ ৩,,০০০-৯,,০০০ টাকার মধ্যে চট্টগ্রাম এলাকায় অ্যাপার্টমেন্ট কিনতে পারেন। দক্ষিণ খুলশী, নাছিরাবাদ, হিলভিউ, জামালখান, নন্দনকানন, চাটগাঁওয়ের মতো এলাকায় দাম একটু বেশী কিন্তু অন্যান্য এলাকায় প্রতি বর্গফুট ৪ থেকে ৬ হাজার টাকার মধ্যে মানসম্মত অ্যাপার্টমেন্ট পাওয়া যায়।

চট্টগ্রামে ফ্ল্যাট বিক্রি বাড়লেও গতি ফেরেনি”

মাসুদ মিলাদ

উৎস: প্রথম আলো

তারিখ: ০২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

এই অনুচ্ছেদে চট্ট্রগামের আবাসন খাতের উপর আলোকপাত করা হয়েছে।

আবাসনখাতের উদ্যক্তাদের মতে যদিও গত বছরের চেয়ে ফ্ল্যাটের বিক্রি বেড়েছে, তবে আবাসন খাতের জড়তা এখনও কাটেনি। ২০০৮ সাল থেকে চট্টগ্রামে আবাসন খাতে উত্থান শুরু হয়যেখানে এর সঙ্গে যুক্ত হন অনেক মৌসুমি ব্যবসায়ী। ব্যবসায়ীদের মধ্যে প্রতিযোগিতা বাড়ায় জমির মূল্য বৃদ্ধি পায়। জমির মালিকেরাও সাইনিং মানি বা নগদ অর্থের বাড়াতে থাকেন যার ফলে অ্যাপার্টমেন্টের মূল্য বেড়ে যায়। এরপরও ঋণের সহজলভ্যতা ও নগদ অর্থের প্রবাহের কারণে ফ্ল্যাটের চাহিদা আছে। শেয়ারবাজার ধসসহ নানা কারণে নগদ অর্থের প্রবাহ কমে গেলে ২০১২ সালের শেষে এ খাতে মন্দা শুরু হয়। যার কারনে আবাসন প্রতিষ্ঠান সময়মত প্রকল্প শেষ করতে ব্যর্থ হয়। গ্রাহকের আস্থায়ও চিড় ধরে। গত বছর পর্যন্ত চট্টগ্রামে রিহ্যাবের সদস্যভুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর অবিক্রীত পড়ে ছিল প্রায় পাঁচ হাজার ফ্ল্যাট এবং সদস্যের বাইরে হিসাব করলে এর সংখ্যা আরও বাড়বে।

রিহ্যাবের সহসভাপতি ও চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কমিটির চেয়ারম্যান আবদুল কৈয়ূম চৌধুরী প্রথম আলোকে বলেন, যদিও গত বছরের চেয়ে ফ্ল্যাটের বিক্রি বেড়েছে। তবে সরকারের সহযোগিতা ছাড়া এ খাত পুরোপুরি গতিশীল হবে না। তিনি আরও বলেন, গৃহঋণের সুদ কমে এলেও এখনো নিবন্ধন খরচ বেশি থাকায় বিক্রি বাড়ছে না। তার মতে, আবাসন খাতের গ্রাহকদের জন্য ৭ শতাংশ সুদে সরকার যদি বিশেষ তহবিল গঠন করে, তাহলে এই খাত প্রাণ ফিরে পাবে।

উদ্যোক্তাদের মতে, গত এক-দেড় বছরের মধ্যে ফ্ল্যাটের দাম কমেছে প্রায় ২০ থেকে ২৫ শতাংশ। তথ্য অনুসারে নীচে চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকার অ্যাপার্টমেন্টের মূ্ল্যর পরিবর্তন দেখানো হল:

এলাকা অ্যাপার্টমেন্টের পূর্ব ‍মূল্য অ্যাপার্টমেন্টের বর্তমান ‍মূল্য
নাসিরাবাদ ১১,০০০ টাকা ৮,০০০-৮,৫০০ টাকা
কলেজ রোড ৬,০০০-৭,০০০ টাকা ৫০০০ টাকা
পাঞ্চালিশ ৮,০০০-৯,০০০ টাকা ৭,০০০ টাকা
নাজিম রোড ৮,০০০-৯,০০০ টাকা ৭,০০০ টাকা

 উদ্যোক্তারা বলেন, চট্টগ্রামে আবাসন খাতে এখনো গ্রাহকদের বড় অংশ উচ্চবিত্ত ও উচ্চমধ্যবিত্ত শ্রেণির, এই তালিকায় আছেন ব্যবসায়ী ও উচ্চ আয়ের পেশাজীবীরা। অনুচ্ছেদে আরও বলা হয়েছে, মধ্যবিত্ত শ্রেণির লোকজন ও মধ্যপ্রাচ্য কেন্দ্রিক প্রবাসী গ্রাহকদের আস্থা কমে যাওয়ায় তারা বিনিয়োগ করতে খুব একটা আগ্রহী নয়। আস্থা ফেরানো গেলে আগ্রহী ক্রেতাদের আকর্ষন বাড়ানো যেত।

ফিনলে প্রপার্টিজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোফাখখারুল ইসলাম বলেন, ফ্ল্যাটের দাম এখন সর্বনিম্ন। ক্রেতাদের আকর্ষন না থাকায় চট্টগ্রামের আবাসন ব্যবসায়ীরা নতুন নতুন প্রকল্প নিতে খুব একটা আগ্রহী নয়।

আবাসন ব্যবসার বর্তমান অবস্থার উপর মন্তব্য করতে গিয়ে ব্যবসায়ীরা বলেন, যদিও চট্টগ্রামে রিহ্যাবের সদস্যভুক্ত ৯৮টি প্রতিষ্ঠান রয়েছে, রিহ্যাবের বাইরেও রয়েছে দুই শতাধিক প্রতিষ্ঠান। এর মধ্যে প্রথমসারীর প্রতিষ্ঠান মাত্র ১০-১২টি। আবাসন খাতের উত্থান দেখে যেসব ব্যবসায়ী হঠাৎ করে এই বাজারে এসেছিলেন, তাঁদের ৬০ থেকে ৭০ শতাংশ এখন বাজারে নেই বলে জানান আবাসন খাতের শীর্ষস্থানীয় উদ্যোক্তারা।

আবাসন খাতে ঘুরে দাঁড়ানোর সুবাতাস দেখা যাচ্ছে”

ন্যাশনাল হাউজিং ফিন্যান্স এন্ড ইনভেস্টমেন্ট লিঃ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. খলিলুর রহমান এর সাক্ষাৎকার

সুজয় মহাজন

উৎস: প্রথম আলো

তারিখ: ০২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

আবাসন খাতের বর্তমান অবস্থা একই সাথে হোম লোন এবং সুদের হার বিষয়ে এই সাক্ষাৎকারে আলোকপাত করা হয়েছে।

আবাসন খাতের বর্তমান অবস্থা নিয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে মো. খলিলুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, ২০১০ সালের শেয়ার বাজার ধ্বসের পর থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত আবান খাত ক্ষতিগ্রস্থ হয়। রিহাবের তথ্য থেকে তিনি বলেন, ২০১৪ ও ২০১৫ সালে যথাক্রমে ১০,০০০টি ও ১৫,০০০টি অবিক্রিত অ্যাপার্টমেন্ট ছিল। অবশ্য এই বছর পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে যার কারন হল হোম লোন এর ক্ষেত্রে নিম্ন সুদের হার। পূর্বে যেই লোন এর সুদের হার ছিল ১৬-১৭ শতাংশ, বর্তমানে তা কমে দাড়িয়েছে ১০ শতাংশ। আবাসন খাতের বাজারের আগের স্থবিরতায় অ্যাপার্টমেন্টের মূল্য কমের দিকে ফলে মধ্যবিত্তদের মধ্যে অ্যাপার্টমেন্ট ক্রয়ের আগ্রহ বাড়ছে এবং সেই সাথে বাড়ছে হোম লোনের চাহিদাও।

ন্যাশনাল হাউজিং ফিন্যান্স এন্ড ইনভেস্টমেন্ট লিঃ এর সুদের হার সম্পর্কে জানতে চাইলে জনাব রহমান বলেন, তার প্রতিষ্ঠান সর্বনিম্ন ১০ শতাংশ হারে হোম লোন দিচ্ছেন। এই কোম্পানী আবাসন খাতে বাড়ি নির্মাণ, জমি ক্রয়, ফ্ল্যাট ক্রয়সহ আবাসন খাতে নানা ধরনের ঋণের পাশাপাশি ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প (এসএমই) ঋণ এবং লিজ অর্থায়ন দিয়ে থাকে। এই লোনগুলোর ক্ষেত্রে সুদের হার ১০-১২শতাংশ। তিনি আরও জানান বিতরণ করা মোট ঋণের ৮০ থেকে ৮৫ শতাংশই আবাসন খাতের ঋণ এবং আবাসন ঋণ বিতরণের ক্ষেত্রে পেশাজীবীদের অগ্রাধিকার দেওয়া হয়। তার মতে সরকারি চাকরিজীবী, ব্যাংকার, চিকিৎসক—এসব পেশার লোকের মধ্যে আবাসন ঋণ গ্রহণের প্রবণতা বেশি। অর্থনিতিক সামর্থ্য বিবেচনা করে ঋণের পরিমাণ নির্ধারণ করা হয়ে থাকে। যাঁদের মাসিক বেতন গড়ে ৬০ থেকে ৮০ হাজার টাকার মধ্যে, ১৫-২০ বছর মেয়াদে তাঁদের সর্বোচ্চ ৩০ থেকে ৩২ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ দেওয়া হয় তবে ৩০ থেকে ৩৫ বছর বয়সে কেউ ঋণ নিলে ৬৫ বছর বয়স পর্যন্ত তিনি ঋণ পরিশোধের সময় পাবেন।

মধ্যম আয়ের জনগোষ্ঠীর অ্যাপার্টমেন্ট ক্রয়ের অর্থনৈতিক বাধার বিষয়ে জনাব রহমান বলেন, সবার বাসস্থান নিশ্চিত করতে সরকারের উচিত এ বিষয়ে এগিয়ে আসা। নিবন্ধন খরচ কমানো এবং স্বল্প সুদে তহবিল সহায়তা পেলে মধ্যম আয়ের জনগোষ্ঠীর ফ্ল্যাট ক্রয়ে সক্ষমতা তৈরী হবে। দ

রাজধানী বা বড় বিভাগীয় শহরে একটা ফ্ল্যাট কেনা এখনো দুঃসাধ্য। আমি মনে করি, এ ক্ষেত্রে সরকার রেজিস্ট্রেশন খরচ কিছুটা কমালে তাতে খরচ কিছুটা কমবে। এ ছাড়া স্বল্প সুদে ঋণ সহায়তা নিশ্চিত করতে আবারও গৃণঋণের জন্য পুনঃ অর্থায়ন তহবিল চালু করা দরকার। আমরা যদি স্বল্প সুদে তহবিল সহায়তা পাই, তাহলে গ্রাহকের মাঝেও স্বল্প সুদে ঋণ দিতে পারি। বর্তমানে তার প্রতিষ্ঠানে আমানতের ক্ষেত্রে সুদের হার ৭.৫% এবং লোনের ক্ষেত্রে সুদের হার ১০%। তার মতে, আর্থিক খাতে ঋণের সুদ হার না কমার পেছনে খেলাপি বা কুঋণও বড় বাধা। ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণের হার ১০ শতাংশের ওপরে। কিছু পরিবর্তনের মাধ্যমে খেলাপির হার ১-২ শতাংশের মধ্যে নামিয়ে আনা সম্ভব।

এই সাক্ষাৎকারে তিনি ন্যাশনাল হাইজিং ফিন্যান্স এন্ড ইনভেস্টমেন্ট লিঃ এর অর্থনৈতিক শক্ত ভিত্তির কথাও বলেছেন। তিনি জানান, ২০১৫ সালে ২৮০ কোটি টাকার ঋণ বিতরণ করা হয়েছে এবং এ বছর তা ৪০০ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যেতে পারে। জনাব রহমান আসন্ন লোন সুবিধাগুলো সম্পর্কে আলোকপাত করতে গিয়ে তিনি গ্রুপ হোম লোন সম্পর্কে বলেছেন যার মাধ্যমে জায়গা কেনা থেকে শুরু করে বাড়ি নির্মাণে ঋণ সুবিধাও দেওয়া হচ্ছে। তিনি আরও জানান, নতুন করে আরও কয়েকটি শাখা ও বুথ খোলার পরিকল্পনা তাঁদের রয়েছে।

“বাংলাদেশে bProperty আবাসন পোর্টাল চালু”

ক্যাথি অ্যান্ডারসন

উৎস: http://www.propertyportalwatch.com

তারিখ: ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

এই অনুচ্ছেদে বাংলাদেশে নতুন আবাসন পোর্টাল, bproperty.com শুরু সম্পর্কে বলা হয়েছে। পোর্টালটি ইমার্জিং মার্কেট গ্রুপ দ্বারা প্রবর্তিত যারা পাকিস্তান ও দুবাই এর আরও দুইটি পোর্টাল যথাক্রমে zameen.com ও bayut.com এর মালিক।

নতুন সাইটটি বাংলাদেশী আবাসন ভক্তাদের সেবা দিয়ে থাকেন। এ বছরের জুন মাসে একটি প্রপার্টি পোর্টাল সংবাদ সম্মেলনে ওয়েবসাইটটি শুরু করার ঘোষণা দেয়া হয়। bproperty.com এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক শিফতাউর রহমান ঢাকা ট্রিবিউন কে বলেন, সাইটটি এপার্টমেন্ট বেচা-কেনা ও ভাড়া দেয়া সহজতর করবে। এছাড়া এপার্টমেন্ট ক্রেতা, এপার্টমেন্ট মালিক এবং ভাড়াটিয়াদের জন্য বিভিন্ন ধরনের সেবা শীঘ্রই চালু করা হবে।

“নিয়ম মেনে ভবন বানান”

মোছাব্বের হোসেন

উৎস: প্রথম আলো

তারিখ: ০৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

এই অনুচ্ছেদে ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে বিধিমালা মেনে চলার প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে বলা হয়েছে। ভূমিকম্প প্রতিরোধী স্থাপনা নির্মাণের মাধ্যমে নিরাপত্তা প্রদান বিষটির উপর আলোকপাত করা হয়েছে।

হাউস বিল্ডিং রিসার্চ ইনস্টিটিউট এক গবেষণায় জানিয়েছে, বাংলাদেশের ঢাকাসহ অন্যান্য এলাকায় ভূমিকম্প বা অন্য কোন কারণে ভবন ধ্বসের যেসব ঘটনা ঘটেছে, তার বেশির ভাগই ভবনের ভিতের নকশা সঠিক না হওয়ার কারণেই ঘটেছে। গবেষণায় আরও দেখা গেছে, বেশির ভাগ ভবন তৈরির সময় মাটির গুণাগুণ পরীক্ষা করা হয় না এবং ভূমিকম্প-সহনীয় করে তৈরি হয় না। এসব কারণেও ভূমিকম্পের সময় ভবন ধ্বস হয়।

বাংলাদেশ আর্থকোয়েক সোসাইটির সভাপতি অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরী মন্তব্য করেন, ‘ভূমিকম্প এমন একটি প্রাকৃতিক দুর্যোগ, যার জন্য আমাদের কোনও প্রস্তুতি কাজে আসবে না যদি অবকাঠামো সঠিকভাবে নির্মাণ করা না হয়। সবচেয়ে গুরুত্ব দিতে হবে ভবনের গঠন প্রণালী, নির্মাণ পরিকল্পনা ও নির্মাণকৌশল সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করা।’

বাংলাদেশ আর্থকোয়েক সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক মো. আবু সিদ্দিক বলেন, ভূমিকম্প বা অন্যান্য সময় ভবন ধ্বসের কারণ হচ্ছে ভবনের স্থাপত্য নকশা সঠিক না থাকা, মাটির গুণাগুণ পরীক্ষা না করে ভবন নির্মাণ করা এবং ভূমিকম্প-সহনীয় ভবন নির্মাণ না করা। তিনি আরও বলেন, ঢাকা শহরের শক্ত মাটিতে ও নরম মাটিতে ভূমিকম্পের তীব্রতা যথাক্রমে ‘সাত’ এবং ‘নয়’ বিবেচনা করে স্থাপনা নির্মাণ করা উচিত। একটা ভূমিকম্প হলে সেখান থেকে কতটা শক্তি নির্গত হয়, তার পরিমাপই হলো ভূমিকম্পের মাত্রা। তিনি নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে জিও টেকনিক্যাল প্রকৌশলী দ্বারা ভবন তৈরির স্থানের মাটি পরীক্ষা ও ভিতের নকশা প্রণয়নের পরামর্শ দেন। এরপর স্থাপত্য প্রকৌশলী, কাঠামো প্রকৌশলী, তড়িৎ ও যন্ত্রপ্রকৌশলীদের একটি আদর্শ ভবন নির্মাণে অবদান রাখতে হবে।

এই অনুচ্ছেদে, সবকিছু নকশার মধ্যেই সীমাবদ্ধ না রাখার ব্যাপারে উপদেশ দেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে বাংলাদেশ ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের প্রেসিডেন্ট প্রকৌশলী এম শামীম উজ জামান বসুনিয়া বলেন, ভবন তৈরির সময় অনেকে টাকা বাঁচানোর জন্য পেশাদার প্রকৌশলীর মতামত না নিয়ে শুধু নির্মাণ শ্রমিকদের কথা শোনেন। আবার অনেক সময় প্রকৌশলী নকশা প্রণয়ন করেই দায় শেষ করেন এবং নির্মাণ শ্রমিকরা সেটি ঠিকমতো অনুসরণ করছেন কি না, সে বিষয়ে খোঁজ নেন না। তিনি আরও বলেন, একটি ভবন কখনো পুরোপুরি ভূমিকম্প প্রতিরোধক হতে পারে না। কিন্তু সেটি এমনভাবে তৈরি করতে হয়, যেন ভূমিকম্পে অধিক সময় ধরে টিকে থাকতে পারে।’ ভবন তৈরির সময় যে রড বা রিং ব্যবহার হচ্ছে বা যে বিম তৈরি হচ্ছে, তা ঠিকমতো হচ্ছে কি না অথবা কলামের সাইজ ঠিক হচ্ছে কি না—তা দক্ষ প্রকৌশলীদের দিয়ে তদারক করা প্রয়োজন বলে তিনি মনে করেন।

এখনো বাংলাদেশে বিভিন্ন ভবন নির্মাণের সঙ্গে স্থপতি ও প্রকৌশলীরা জড়িত থাকেন না বলে মনে করেন প্রফেসর জামিলুর রেজা চৌধুরী। ঢাকায় ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে নকশার ছাড়পত্র দেয়ার ক্ষেত্রে রাজউক প্রকৌশলীদের আরও সতর্ক হতে হবে। তিনি বলেন, মালিক ও রাজমিস্ত্রিরা নিজেদের মতো করে ভবন নির্মাণ না করে পেশাদার প্রকৌশলীদের দিয়ে ভবন নির্মাণে ব্যবহৃত উপকরণ যেন মানসম্পন্ন হয়, সেদিকে অত্যন্ত গুরুত্ব দেওয়া উচিত।

আবাসন কোম্পানীর সাথে ব্র্যাক ব্যাংকের চুক্তি স্বাক্ষর

চট্টগ্রাম ব্যুরো

উৎস: দি নিউ নেশন

তারিখ: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৬

এই অনুচ্ছেদে হোম লোন সুবিধার জন্য ব্রাক ব্যাংক ও চট্টগ্রামের আবাসন প্রতিষ্ঠান জুমাইরা হোল্ডিংস এর মধ্যকার চুক্তির ঘোষনা দেয়া হয়েছে।

চুক্তি অনুযায়ী ব্যাংকটি ডেভেলপার কোম্পানির ভোক্তাদেরকে বিশেষ সুদ এবং প্রোসেসিং চার্জ সহ অন্যান্য অফার দেবে। চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে ব্র্যাক ব্যাংকের সেলস এর প্রধান, কায়সার হামিদ এবং জুমাইরা হোল্ডিংস এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম শাহজাহান নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে এ চুক্তি স্বাক্ষর করেন।