What is Happening in the Real Estate Market of Bangladesh? October 2016 Update

Read on to find the overall review of the real estate sector of the country collected from various dailies.

Installation of Sewage Treatment Plant in Buildings- Real Estate Sector will face more crises

by Dulal Hossain

Source: Amader Shomoy

Date: 1 October 2016

The article concentrates on the impact of sewage treatment plant installation in residential buildings on the real estate sector of the country.

The article states that since 2010 the real estate sector of the country has been battling many tribulations. A few of the factors attributed to the dire state of the real estate sector are high land price, unsold flats in completed projects, limitation of loan availability, political instability and many others. Currently, REHAB is trying to overcome this phase. However, under these circumstances, if installation of sewage treatment plant in residential buildings is considered, then problems will increase. REHAB suggested that the decision has to be taken after careful thinking.
According to the article, the decision was taken in a meeting of Ministry of Public Works regarding DAP review committee held on 4th June of 2014. As per the decision, when RAJUK approves a plan, it has to be ensured that STP installation is incorporated in it. The decision was taken to protect environment and rivers of the country, stated the Minister to the reporters during the meeting. He further commented that RAJUK will send officials to visit existing apartments for inspection and STP installation shall also be enforced in buildings with only septic tanks.

Several real estate business people stated that the process of getting design approval of buildings under DAP areas is highly complicated and time consuming. Due to the lengthy process, developers sometimes cannot deliver projects on time to landowners. Meanwhile landowners have to pay on a monthly basis. And apartment owners point the blame to developers. To mitigate the hassle and simplify the process, REHAB had suggested government for a one-stop center and zoning procedure repeatedly but to no avail. Under such circumstances, the decision to include STP installation in building design approval will further impair the real estate sector.

REHAB Vice President, Engr. Sarder Md. Amin commented that the government is trying to initiate STP installation in all buildings but without considering its feasibility. Regarding the issue, a meeting was held with Ministry of Public Works. The sewage treatment plant is an expensive addition to the building which is commonly found in factories and not suitable for residential projects. If the government considers this then it would be unrealistic and real estate developers would be the most affected because installation of this plant is not possible at lower than Tk 1 crore. If STP is installed in residential flats, it will raise construction costing. Furthermore the cost of chemical required to maintain this plant is also high. Therefore, it is tricky for real estate developers to install STP in residential buildings.

RAJUK’s Uttara Flat Handover Not Happening in December

by Staff Reporter

Source: Prothom Alo

Date: 2 October 2016

The article talks about the delay in handover of apartments in Uttara Project of RAJUK.

Although flats in RAJUK’s Uttara Apartment project were supposed to be handed over in December, the handover is being delayed due to several factors. Incomplete construction works, no installation of lift and utility connection problems have put constraints on the schedule. This is why it might take from April to June of next year for the handover to take place. The article cites concerned officials of Uttara Apartment Project as source of the information.

Around 5,500 consumers received allotment of 1620sqft apartments in Block A of Uttara sector 18. The project comprises of total 79 buildings, each 15 storied. The apartment price of the flat is Tk 3500 per sqft. The consumers will also have to bear additional charges for service and car parking space allotment.

According to the article almost 3500 consumers have provided approximately Tk 24 lac as deposit and RAJUK’s requirement of 3 installments in the initial stages. However, so far RAJUK has been able to complete only ten 15 storied- buildings having 840 flats and according to sources, handing over apartments to 3500 consumers for 840 flats can ensue chaos. Moreover, even though utility connection installation is underway, there has been no initiation for lift installation.

A project site visit revealed that additional 5 building construction is near complete and total number of flats in those is approximately 420. Deputy Director of the project, Md. S A Sabri spoke to Prothom Alo on this account stating that although it was expected the handover to 840 consumers could be possible by December, the reality is entirely different. However, it may be feasible in April or June.

On the other hand, consumers will have to pay the fourth installment. Apart from this, customers who have paid two installments after application later on also need to pay the third installment. Although there is scope for extension, the last day to pay the installment till now is 31st October.

Project Display in Rakeen City

From Business Desk

Source: Kaler Kantho

Date: 2 October 2016

The article talks about a project launching ceremony arranged by the real estate developer company held in the premises of Bijoy Rakeen city.

The program was arranged to introduce the project to prospective customers. It is the company’s first project in Mirpur. In the program, Managing Director, S A K Ekramuzzaman was present who highlighted the project features. He commented that it will be a highly secure residential project of international standard. Also present in the ceremony were CEO of the company, Lieutenant Colonel Jahurul Islam (retd), General Manager- Sales, S M Shakil Sarwar and other senior officials of the company.

Real Estate business has to be taken outside Dhaka

by Staff Reporter

Source: Prothom Alo

Date: 5 October 2016

The article talks about the requirement of real estate establishments outside Dhaka to fulfill housing needs of everyone. The talk surfaced in a conference held for World Housing Day on 4th October 2016 organized by REHAB. In the event, REHAB senior members, as well as ex-Ministry of Housing and Public Works, Sheikh Shahidul Islam and several journalists were present.

The main speech revolved around providing accommodation for people in the country who are still deprived of housing facilities. The article states that due to climate change, several regions of the country are facing river corrosion, as a result of which people are becoming homeless. In the capital city of Dhaka alone around 50 lac people are homeless. To prevent migration of rural people in the capital city, accommodation has to be provided in District, Division and Upazilla level. Senior Vice president of REHAB and Member of Parliament, Nurunnobi Chowdhury commented that REHAB members have to undertake new projects in different regions of the country after consideration of affordability of the buyers. He also suggested that housing requirement of people who have lost their fluvial island (chor) also needs to be fulfilled. He further commented on the negligence of government towards the real estate sector and urged the government to bring down interest rate of home loans to a single digit unit to revive the sector.

REHAB’s First Vice President, Liakot Ali Bhiuyan quoted that the real estate sector employs more than 2 crore people. He also stated that REHAB members also contribute to Hotel-Motel establishments in Cox Bazaar which is helping in the promotion of tourism in the country.

The introductory speech in the program was delivered by Sohel Rana, REHAB Vice President (Finance). Also, present in the event were Maksudur Rahman,   Professor of Dhaka University, Geography and Environment Division, Kamrul Islam Chowdhury, General Secretary of National Press Club besides others.

Interview of Ministry of Housing and Public Works Secretary,Md Shahid Ullah

by Tofazzol Hossain Rubel

Source: Kaler Kantho

Date: 3 October 2016

On World Habitat Day 2016 Kaler Kantho staff reporter took an interview of Ministry of Housing and Public Works Secretary, Md. Shahid Ullah.

In the interview, when asked about this year’s theme observed on World Habitat Day, he replied the theme of the current year is “Housing estate is the center of development.” On the occasion, institutions under Ministry of Housing and Public Works have undertaken various programs such as rally, relevant discussion meetings and so on.

Replying to a query about progress of work for ensuring housing for all, Md Shahid Ullah answered that as per Prime Minister’s announcement, extensive work has been undertaken to achieve the vision by the year of 2021. Working towards the goal, National Housing Authority, Capital Development Authority, Chittagong Development Authority and several other bodies have undertaken several projects which are in progress in Dhaka city and other areas of the country. Almost 90 flats and projects are currently underway. Apart from these, he stated there are several more projects in the pipeline.

Concerning the acute housing problem which government officials have to face, the Secretary affirmed that in the capital city, they are able to provide about 8% housing and this amount is slightly higher outside the capital city. He stated as per Prime Minsiter’s announcement by the year 2018, work has been initiated to raise this amount to 40%. Department of Public Works, RAJUK and National Housing Authority have started construction works of eleven 20-storied buildings on nine empty plots. Also, planning of several other projects have been undertaken for empty plots in Azimpur and Motijheel Colony, as well as project of new building replacing old establishments. He further stated that they have taken initiative to construct multi-storied buildings in place of twenty one dilapidated buildings in the capital city.

When asked about progress of new construction buildings for Ministers, Judges and Secretary. Md Shahid Ullah replied that for the judges, construction of 76 flats of superior type is under construction and these can be handed over by December. Apart from these, several flats are being developed for ministers and secretaries.

The interviewer also enquired about monitoring of quality of construction materials about a large number of flats that are being constructed in Mirpur. Md Shahid Ullah stated that one thousand flats are being constructed in Shopnonogor project at Mirpur Section 9. And concerned authority is monitoring quality of work, as well as ensuring financial transparency of the project. For timely completion of project, the concerned authority along with Prime Minister holds meetings periodically with the in- charge engineers to get the updates on construction status.

Commenting on relatively higher prices of government flats due to which sale in Uttara project is sluggish, Md Shahid Ullah stated that there is no scope for government flats to be higher priced than those of private organizations. He stated that the planned project has several features and amenities like playground, park, ponds, community center, mosque, library etc. He further stated the project is being given with a 20-year installment facility. Also, the project is being constructed following BNBC guideline, and not only that, there is also home loan available from tie-up with a private bank for the Uttara project with an interest rate of 9%.

When asked about steps to be taken for ensuring planned residential areas such as Dhanmondi, Lalmatia, Mohammadpur, Mirpur, Gulshan Baridhara Banani and Uttara to remain so instead of being cluttered with commercial use, the Secretary replied that RAJUK has identified establishments that are commercial in those areas. He further stated several homeowners are using residential property for business purpose and actions will be taken against those who have violated the law. Also, RAJUK is continuously carrying out eviction process and has further plans to do so in said locations.

Further in the interview, when enquired about progress of work in projects outside Dhaka, Md Shahid Ullah commented that apart from city, housing projects have been undertaken in district level as well. He is hopeful by next year the authority would be able to play significant role in achieving milestone for solving housing problem persisting in the country.

Md Shahid Ullah acknowledged role of private real estate companies in development of the country. He stated several works have been undertaken in government plots with the aid of private real estate companies to develop planned residential areas. He also stated new private policy has been simplified. He urged private real estate companies to build according to BNBC guidelines and expressed hope that private organization will come forward as a development partner.

Housing Minister Advises Providing Home Loans to Facilitate Real Estate Sector

Source: Sagorkonnya

Date: 3 October 2016

The article focuses on a “World Habitat Day”-discussion meeting held at Osmani Sriti Milonayoton on 3rd October. The program was arranged by the Ministry of Housing and Public Works and chaired by its Secretary Md. Shahid Ullah.

In the meeting, Ministry of Housing and Public Works Engr. Mosharrof Hossain commented that to bolster the real estate sector, government needs to provide home loan with interest rate as low as 4-2% with a tenure period of 30 years. He reflected upon the imperativeness of real estate sector as it comprises of more than 300 industries and employees of some several lacs. To sustain the real estate sector, government should take up new policies and provide long term home loan for ensuring housing of low income and middle income group. He suggested doing this will cease migration to the capital city and stated that to provide accommodations for all, near about 1 lac apartment projects are in the pipeline in various locations such as Purpachal, Jhilmil and Uttara.

Also present in the program was UNDP’s Acting Country Director Mr. Nick Beresford who stated that housing is a basic right for all and despite being a middle income country, the real estate sector of the country is developing favorably. He also stated UNDP has been consistently playing an active role in augmenting the real estate sector of the country.

**********************************************************************************

বাংলাদেশের রিয়েল এস্টেট সেক্টরে কি ঘটছে? অক্টোবর ২০১৬ এর আপডেট

লেখক: তাসনিয়া তাজিন                                                                                                                              অনুবাদক: আহমেদ নাজিয়া

বিভিন্ন দৈনিক পত্রিকা থেকে সংগৃহীত তথ্য থেকে দেশের রিয়েল এস্টেট সেক্টরের সামগ্রিক চিত্র সম্পর্কে জানতে পড়ুন

বাড়িতে সুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্লান্ট স্থাপন– রিয়েল এস্টেট সেক্টর সামনে আরও সমস্যার সম্মুখীন হবে

সোর্স: আমাদের সময়

তারিখ: ০১/১০/২০১৬

বাড়িতে সুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্লান্টের কারনে রিয়েল এস্টেট সেক্টরে তার প্রভাব নিয়ে এই আর্টিকেলে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

আর্টিকেলে বলা হয়েছে ২০১০ সাল থেকে বাংলাদেশের রিয়েল এস্টেট সেক্টর অনেক প্রতিকূলতার ভিতর দিয়ে যাচ্ছে। বিভিন্ন ফ্যাক্টর যেমন জমির অধিক দাম, রেডি এপার্টমেন্টের অবিক্রিত ফ্ল্যাট, লোন না থাকা, রাজনৈতিক অস্থিরতা ইত্যাদির কারনে আজ রিয়েল এস্টেট সেক্টরের এই প্রতিকূল অবস্থা। যদিও রিহ্যাব এই অবস্থার উন্নতির জন্য কাজ করছে কিন্তু এই অবস্থায় যদি সুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্লান্ট বাসা বাড়িতে ইন্সট্রল করা অবশ্যক করা হয় তাহলে সমস্যা আরো বাড়বে। রিহ্যাব জানিয়েছে চিন্তাভাবনা করেই সমস্যার সমাধান করা হবে। আর্টিকেল অনুযায়ী সিদ্ধান্ত ৪ জুন ২০১৪ গনপূর্ত মন্ত্রানালয়ের অধীনস্ত ডিএপি কমিটির মিটিং এ নেওয়া হয়েছে। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রাজউক যখন কোন প্লান অনুমোদন করবে অবশ্যই সেই প্লানের ভিতরে সুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্লান্ট থাকতে হবে। মন্ত্রী মিটিং এ বলেন এই সিদ্ধান্ত দেশের পরিবেশ এবং নদী বাঁচাতে নেওয়া হচ্ছে। তিনি আরো বলেন রাজউক অফিসিয়ালি এপার্টমেন্টগুলোতে ভিজিট করবে শুধুমাত্র সেপটিক ট্যাংকের সাথে সুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্লান্ট আছে কিনা দেখার জন্য।

রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, ডিএপি এলাকার ভিতরের বাড়িগুলোর ডিজাইন এপ্রুভাল নেওয়াটা জটিল এবং সময় সাপেক্ষ ব্যাপার। সময় বেশি লাগবার কারনে ডেভেলপাররা অনেক সময় জমির মালিকদের নির্দিষ্ট সময়ের ভিতরে বাড়ি হ্যান্ডওভার করতে পারেনা। এদিকে প্রতিমাসে জমির মালিকদেরকেও টাকা পরিশোধ করতে হয় এবং তারা ডেভেলপারদের দোষারোপ করে। এই সমস্যা সমাধানে রিহ্যাব সরকারের কাছে বিনা লাভে ওয়ান স্টপ সেন্টার এবং জোন ব্যবস্থা চালু করার জন্য আবেদন করেছে। এই অবস্থায় বাসা বাড়িতে সুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট স্থাপন অবশ্যক করায় রিয়েল এস্টেট সেক্টর আরো বেশি সমস্যায় পড়বে।

রিহ্যাব প্রেসিডেন্ট ইঞ্জিনিয়ার সরদার মোহাম্মদ আমিন বলেছেন সরকার ফলাফল বিবেচনা না করেই সব বাড়িতে সুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্লান্ট স্থাপনের চেষ্টা করছে। এই ব্যাপারে একটা মিটিং ও হয়েছে গনপূর্ত মন্ত্রনালয়ে। সুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্লান্ট বাসা বাড়ির জন্য ব্যয় সাপেক্ষ, এগুলো বেশি দেখা যায় বড় বড় কলকারখানায়। সরকার বিবেচনা না করলে ক্ষতিগ্রস্ত হবে রিয়েল এস্টেট মালিকরা কারন এটি তৈরিতে বাড়ি প্রতি কমপক্ষে এক কোটি টাকার প্রয়োজন পড়বে। এটি বসাতে গেলে একটি বাড়ি তৈরির পেছনে অনেক টাকা খরচ হবে। আবার এই প্লান্ট এর জন্য আনুসংগীক রাসায়নিক পদার্থের একটা আলাদা খরচ আছে। সুতরাং বাসা বড়িতে সুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্লান্ট বসানোটা রিয়েল এস্টেট ডেভেলপারদের জন্য কষ্টসাধ্য।

রাজউকের উত্তরার ফ্ল্যাট হ্যান্ডওভারের কাজ এই ডিসেম্বরে হচ্ছে না

স্টাফ রিপোরটার

উৎস: প্রথম আলো

তারিখ: ০২/১০/২০১৬

এই আর্টিকেলে রাজউকের উত্তরা প্রজেক্টের এপার্টমেন্ট হ্যান্ডওভারের বিলম্বতা নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।

যদিও এই ডিসেম্বরের ভিতরেই উত্তরা এপার্টমেন্ট প্রোজেক্ট হ্যান্ডওভার করার কথা ছিল কিন্তু সেটা নানা কারনে বিলম্বিত হয়েছে। অসমাপ্ত কন্সট্রাকশন কাজ, লিফট এবং অন্যান্য কানেকশনের অসসম্পূর্ণতার কারনে সিডিউলে ঝামেলা হয়েছে। আগামী বছরের এপ্রিল-জুনের ভিতরে কাজ শেষ হবার কথা বলা হয়েছে। আর্টিকেলটিতে উত্তরা এপারটমেন্ট প্রজেক্টের অফিসিয়াল থেকে তথ্য নেওয়া হয়েছে। উত্তরা সেক্টর ১৮ এর ব্লক এ তে প্রায় ৫৫০০ ক্রেতা ১৬২০ স্কয়ার ফিটের এপারটমেন্ট বরাদ্দ পায়। প্রজেক্টটিতে ১৫ তলার মোট ৭৯ টি বিল্ডিং আছে। এপারটমেন্ট প্রতি স্কয়ার ফিটের দাম ৩৫০০ টাকা। ক্রেতাকে অন্যান্য বাড়তি চার্জ এবং গাড়ি পার্কিং স্পেসের বরাদ্দ বাবদ আরো টাকা দিতে হবে।

তথ্য অনুযায়ী প্রথম ধাপে ৩৫০০ জন ক্রেতা ডিপোজিট হিসেবে প্রায় ২৪ লাখ টাকা রাজউককে তিনটা কিস্তিতে দিয়েছে। তথ্য অনুযায়ী প্রায় ৩৫০০ ক্রেতার ৮৪০ টা ফ্ল্যাট এখনো হস্তান্তর করা বাকি। অন্যান্য ইউটিলিটি কানেকশন দেবার কাজ যদিও শুরু হয়েছে তবে লিফট বসাবার কোন উদ্যগ এখনো নেওয়া হয়নি।

ওখানকার সাইট ভিজিট করে জানা গেছে যে আরো ৫টা বাড়ির কাজ প্রায় শেষ এবং সেখানে মোট প্রায় ৪২০ টা ফ্ল্যাট আছে। প্রোজেক্ট ডিরেক্টর এস এ সাবরি প্রথম আলোকে জানিয়েছেন যদিও আরো ৮৪০জন ক্রেতাকে ফ্ল্যাট হ্যান্ডওভার করার কথা আছে এই ডিসেম্বরে কিন্তু বাস্তবতা বলছে আগামী বছরের এপ্রিল-জুনের আগে তা সম্ভব নয়।

আবার ক্রেতাদের চতুর্থ ইন্সট্রলমেন্টও পরিশোধ করতে হবে। এবং আবেদনের পর যারা দ্বিতীয় কিস্তি দিয়েছে তাদেরকেও তৃতীয় কিস্তি পরিশোধ করতে হবে। যদিও সময় বাড়িয়ে সেটা ডিসেম্বরের ৩১ তারিখ পর্যন্ত করা হয়েছে।

রাকিন সিটির প্রোজেক্ট প্রদর্শন 

বিজনেস ডেস্ক,

উৎস: কালের কন্ঠ

তারিখ: ০২/১০/২০১৬

এই অনুচ্ছেদে বিজয় রাকিন সিটিতে প্রোজেক্ট শুরু উপলক্ষে রিয়েল এস্টেট কোম্পানির করা অনুষ্ঠানের উপর আলোচনা করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিলো নির্দিষ্ট ক্রেতাদের তাদের প্রজেক্টের সাথে পরিচিয় করিয়ে দেবার জন্য। এটা মিরপুরে কোম্পানীর প্রথম প্রোজেক্ট। উক্ত অনুষ্ঠানে ম্যানেজিং ডিরেক্টর এস এ কে একরামুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন যিনি প্রোজেক্ট তুলে ধরেছিলেন। তিনি উল্লেখ করে বলেন এটি হতে যাচ্ছে উন্নত বিশ্বের মত আবাসন প্রকল্প। আরো উপস্থিত ছিলেন সিইও লেফটেন্যান্ট কর্নেল জহুরুল ইসলাম, জেনারেল ম্যানেজার -সেলস এস এম শাকিল আনোয়ার এবং কোম্পানীর অন্যান্য সিনিয়র অফিসার।

রিয়েল এস্টেট ব্যবসা ঢাকার বাইরে নিতে হবে- স্টাফ রিপোর্টার,

উৎস: প্রথম আলো

তারিখ: ০৫/১০/২০১৬

সবার জন্য আবাসনন নিশ্চিত করার জন্য ঢাকার বাইরে রিয়েল এস্টেট প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে এখানে আলোচনা করা হয়েছে। এই বিষয়ে রিহাবের ব্যবস্থাপনায় একটি আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠানে রিহ্যাবের সিনিয়র মেম্বার সহ প্রাক্তন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী সাহিদুল ইসলাম ও বিভিন্ন দৈনিকের সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনা অনুষ্ঠানে ঐ সমস্ত মানুষদের নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে যাদের থাকবার জন্য কোন আবাস নেই। আবহাওয়া পরিবর্তনের সাথে সাথে দেশের অনেক স্থানের মানুষ নদী ভাংগনের কারনে ঘরবাড়ি হারাচ্ছে। রাজধানী ঢাকাতেই প্রায় ৫০ লাখ মানুষ গৃহহীন আছে। গৃহহীন মানুষের ঢাকায় আসা বন্ধ করতে জেলা উপজেলা এবং বিভাগীয় পর্যায়ে আবাসন প্রকল্প চালু করতে হবে। রিহ্যাবের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট নুরুন্নবী চৌধুরি বলেন দেশের বিভিন্ন এলাকায় রিহ্যাবের বিভিন্ন আবাসিক প্রকল্প চালু করতে হবে ক্রেতাদের সাধ্য অুনুযায়ী। তিনি আরো বলেন চরাঞ্চলের মানুষের ঘরের ব্যবস্থাও করতে হবে। তিনি সরকারের প্রতি অনুরোধ করেন যেন লোনের সুদের হার কমিয়ে এক অংকে করা হয় যাতে রিয়েল এস্টেট সেক্টরে সবাই বিনিয়োগ করতে আগ্রহী হয়।

রিহ্যাবের প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট লিয়াকত আলি ভুইয়া বলেন ২ কোটির বেশি লোক রিয়েল এস্টেটে কাজ করে। তিনি বলেন রিয়েল এস্টেট সদস্যরা এখন কক্সবাজারে হোটেল এবং মোটেলের কাজ করে দেশের পর্যটন শিল্পের উন্নতি করছে। শুরুতে ভাষণ দেনন রিহ্যাবের ভাইস প্রেসিডেন্ট, উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল এবং পরিবেশ বিভাগের প্রফেসর মাকসুদুর রহমান এবং জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক কামরুল ইসলাম চৌধুরি।

গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রনালয়ের সচিব মোহাম্মদ শহীদ উল্লাহ এর সাক্ষাৎকার

তোফাজ্জল হোসেন রুবেল

উৎস: কালের কন্ঠ

তারিখ: ০৫/১০/২০১৬

বিশ্ব বসতি দিবস ২০১৬ তে কালের কন্ঠের স্টাফ রিপোর্টার গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রনালয় সেক্ররটারি মোহাম্মাদ শহীদুল্লার সাক্ষাৎকার নেন।

এই বছরের প্রকল্প সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, চলতি বছর এর স্লোগান হল হাউজিং এস্টেট সকল উন্নয়নের মূল কেন্দ্রবিন্দু। এই উপলক্ষে মন্ত্রনালয় থেকে বিভিন্ন র‍্যালি, আলোচনা সভার উদ্দ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তিনি উন্নয়ন নিয়ে প্রশ্ন তুললে বলেন, সরকার থেকে ভিশন ২০২১ নামে প্রজেক্ট হাতে নেওয়া হয়েছে। এ জন্য উদ্দ্যোগতা যেমন ক্যাপিটাল ডেভেলপমেন্ট অথরিটি, চিটাগাং ডেভেলপমেন্ট অথোরিটি ছাড়া ও আরো অনেকে ঢাকাসহ অন্যান্য এলাকায় নানা কর্মসূচি শুরু করা হয়েছে। প্রায় ৯০% ফ্ল্যাটের কাজ শেষ করা হয়েছে এবং সামনে আরও কিছু শেষ হবার কথা আছে।

ঢাকার ভিতরে আবাসন সমস্যার কথা জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন ৮% আবাসন ঢাকার ভিতরে করা হয়েছে এবং ঢাকার বাইরে এর সংখ্যা আরও বেশি। তিনি বলেন প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া কথা অনুযায়ী ২০১৮ সালের ভিতরে এই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াবে প্রায় ৪০%। গৃহায়ন মন্ত্রনালয়, আবাসিক, জাতীয় হাউজিং অথোরিটি, রাজউক প্রায় ২০তলা বিল্ডিং এর কাজ ৯টা খালি জমির উপর করা শুরু করেছে। আজিমপুর, মতিঝিলেও কিছু নতুন প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে যেখানে পুরানো বাড়ি ভেঙে নতুন বাড়ির কাজ করা হচ্ছে। তিনি বলেন তারা আরও কিছু স্থানে পুরানো ভবন ভেঙে নতুন করে বহুতল ভবনের কাজ হাতে নেয়া হয়েছে।

যখন সরকারী কর্মকর্তাদের জন্য বরাদ্দ প্রজেক্টের অবস্থা নিয়ে মোহাম্মাদ শহীদুল্লাকে প্রশ্ন করা হয় তিনি বলেন, প্রায় জজদের জন্য করা ৭৬টার মত বড় প্রোজেক্ট ডিসেম্বরের ভিতরে হস্তান্তন করা হবে এবং সচীব এবং মন্ত্রীদের জন্য বাকিগুলোর কাজ করা হচ্ছে এখনো।

রিপোর্টার মিরপুরের কিছু ফ্ল্যাটের জন্য ব্যবহৃত জিনিসের মান নিয়ে প্রশ্ন তুললে তিনি বলেন, প্রায় এক হাজারের মত ফ্ল্যাট মিরপুরের স্বপ্ননগরে প্রজেক্টে সেক্টর ৯ এ বানানো হচ্ছে এবং অথোরিটি এ বিষয়ে সঠিক তত্তাবধায়ন করছে, অর্থনৈতিক স্বচ্ছতার ব্যাপারেও দৃষ্টি রাখা হচ্ছে। সঠিকতম সময়ের ভিতরে কাজ শেষ করার জন্য অথোরিটি এবং প্রধানমন্ত্রী প্রজেক্টের ইঞ্জিনিয়ারদের সাথে কিছুদিন পর পর মিটিং করছেন।

মোহাম্মাদ শহীদুল্লাহ বলেন, উত্তরা প্রোজেক্টের সরকারী ফ্ল্যাটের দাম বেশি হওয়ায় এগুলো বিক্রি কম হচ্ছে, এবং কোন অবস্থাতেই বেসরকারী সেক্টরের চাইতে সরকারী প্রজেক্টের ফ্ল্যাটের দাম বেশি হওয়া চলবে না বলে তিনি জানান। তিনি বলেন প্লান করে করা প্রোজেক্টগুলোয় নানা সুযোগ সুবিধা যেমন খেলার স্থান, পার্ক, পুকুর, কমিউনিটি সেন্টার, মসজিদ, লাইব্রেবী ইত্যাদি আছে। এইসব ফ্ল্যাটে ২০ বছর মেয়াদী ইন্সটলমেন্ট পরিশোধ করার সুযোগও থাকছে। এগুলো বিএনবিসি গাইডলাইন মেনে তৈরী করা হচ্ছে এবং উত্তরা প্রজেক্টে হোম লোনের জন্য বেসরকারি ব্যাংকের সাথে ৯% এর কাছাকাছি হারে সুদে লোনের ব্যবস্থা আছে।

ধানমন্ডি, লালমাটিয়া, মোহাম্মাদপুর, মিরপুর, গুলশান, বনানী, বারিধারার আবাসিক এলাকায় বানিজ্যিক কর্মকান্ডের কথা জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন, এইসব এলাকায় নানা রকম বানিজ্যিক স্থাপনা চিহ্নিত করা গেছে। তিনি বলেন যারা আবাসিক জমিকে ব্যবসার কাজে ব্যবহার করে আইন ভংগ করছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এইসব এলাকায় এই ব্যাপারে রাজউকও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছে।

ঢাকার বাইরের আবাসন প্রকল্পের ব্যাপারে জানতে চাইলে শহীদুল্লাহ বলেন শহরের পাশাপাশি জেলায় জেলায়ও আবাসন প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে। আগামী বছরের মধ্যে আবাসিক সমস্যার সমস্যা সমাধানে অনেকটা এগিয়ে যাওয়া সম্ভব হবে বলে তিনি আশাবাদি। বেসরকারীভাবে রিয়েল এস্টেট কোম্পানিরর উন্নয়নের কথাও স্বীকার করে শহীদুল্লাহ বলেন কিছু কিছু সরকারী জমিও বেসরকারী রিয়েল এস্টেট কোম্পানীকে দেওয়া হয়েছে যাতে ওখানে প্লান করে বাড়ি বানানো সম্ভব হয়।

বেসরকারী রিয়েল এস্টেট কোম্পানীকে তিনি বিএনবিসি গাইডলাইল অনুযায়ী বাড়ি বানাবার পরামর্শ দেন এবং তিনি বিশ্বাস করেন বেসরকারী সংস্থাগুলো সরকারের উন্নয়ন সহযোগী হিসেবেই কাজ করে যাবে।

গৃহায়ন মন্ত্রী রিয়েল এস্টেট সেক্টরের কাজ সহজ করার জন্য হোম লোন প্রদানের উপদেশ দেন

উৎস: সাগর কন্যা

তারিখ: ০৩/১০/২০১৬

বিশ্ব বসতি দিবস উপলক্ষে ২০১৬ এর ৩রা অক্টোবর ওসমানী স্মৃতি মিলানায়তনে আয়োজিত আলোচনা সভা নিয়ে এখানে বলা হয়েছে। অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রনালয় থেকে এবং প্রধান অতিথি ছিলেন মন্ত্রনালয়ে সচীব মোহাম্মাদ শহীদুল্লাহ

গৃহায়ন মন্ত্রী ইঞ্জি মোশাররফ হোসেন বলেন রিয়েল এস্টেট সেক্টরের উন্নতির জন্য অবশ্যই সরকারকে ২-৪% হারে ৩০ বছর সময়ের জন্য হোম লোন প্রদান করা দরকার। তিনি রিয়েল এস্টেট কোম্পানীর প্রয়োজনীয়তা উপর গুরুত্ব দেন কারন এখানে কাজ করছে ৩০০ কোম্পানী এবং লাখ লাখ কর্মী। রিয়েল এস্টেট কোম্পানীগুলোকে বাঁচিয়ে রাখতে সরকারকে নতুন নতুন প্রকল্প গ্রহন এবং নিম্ন সুদ সহ হোম লোন দেবার উপর জোর দেন যাতে মধ্যবিত্ত এবং নিম্ন আয়ের মানুষেরা আবাসন প্রকল্পের আওতায় আসতে পারে। এটা করতে পারলে গ্রাম থেকে ঢাকায় আসার প্রবনতা কমে যাবে, তিনি বলেন প্রায় এক লাখ এপার্টমেন্ট প্রোজেক্ট ঢাকার বাইরে যেমন পূর্বাচল, ঝিলমিল, উত্তরায় চলছে।

এই অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন ইউএনডিপির ভারপ্রাপ্ত কান্ট্রি ডিরেক্টর মিস্টার নিক বেরেস্ফোরড, তিনি বলেন একটি থাকার স্থান প্রতিটা মানুষের মৌলিক অধিকার। মধ্যম আয়ের দেশ হয়েও এখানে রিয়েল এস্টেট সেক্টরের উন্নতি লক্ষনীয়। তিনি আরো বলেন রিয়েল এস্টেট সেক্টরের উন্নয়নে ইউএনডিপি ধারাবাহিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে।