The Guide to Buying a Home for Middle Income People

A beautiful home, a roof over head or sipping tea on the lawn with your loved one is a dream cherished by most couples. However, in reality, the scenario is much different- dealing with humorless and angry landlords, home shifting stress and damage to your favorite furniture piece are parts of daily city life and all of this is owing to the lack of having a concrete plan to fulfill your dream. Another reality of living in a rented place is that your hard earned money goes into the pocket of your landlord. If you want, with careful planning and dedication you can change the scenario and buy your own apartment and fulfill your dream of homeownership. Moreover, these days you do not require 100% saving amount to pay all at once. You can easily book a flat with long term installment facility. Here is a list of things to consider when buying a flat.

Location selection

buy an appratment in Dhaka

You should consider location and apartment size as per your cash in hand as well as your monthly income. Some people like to build castles in the air and start searching for apartments in prime locations and grand size which leads to the demise of homeownership dream. This can easily be prevented by choosing a location where apartment prices are complimentary to your monthly income and flat size is also reasonable. Selecting a rapidly developing area with easy communication provision by DAP keeping in mind the future of Dhaka city is a smart investment decision. For instance, it can be seen that transport in many prime locations such as Dhanmodi, Mohammadpur, Lalmatia, Kalabagan, New Market etc has become troublesome. On the contrary, owing to flyover and 300ft road, living in Kalshi, Mirpur, Pallabi, Progoti Sarani, Khilkhet besides others has become relatively convenient. Apart from these after development of Metorail project, living in areas such as Uttara, Uttarkhan, Diabari, DakkhinKhan will be more convenient. By now 16 unions are already under jurisdiction of North Dhaka & South Dhaka City Corporation.

Apartment selection

In this global era, our thought-processing, perceptions and preferences are continuously changing. For instance, just a few years back, people used to purchase a plot and then build homes. However, in modern times, no one wants the hassle of building own home as a result of which apartment culture is seen among today’s homebuyers. There are even people who spend TK 10-15 crore on buying an apartment. The advantages of apartment buying are multitude including ease of travelling to foreign countries, higher security and hassle free upkeep of apartment. Another popular concept in apartment living these days is the big apartment complex similar to condominiums. These flats are reasonably priced but come with a plethora of lifestyle features and amenities that are lacking in normal apartments. Features may include children’s play area, walk-way, gym, community hall, grocery store, prayer hall, BBQ area and much more to enrich the lifestyle of apartment dwellers. Although these apartments are being built keeping in mind the concept of modern lifestyle, the apartment price of such flats are comparatively affordable. In short, they provide a wonderful combination of luxury and affordability. Several leading real estate companies of Bangladesh like bti, Concord, Navana etc are building such apartments to fulfill the dream of your homeownership in such a community.

Dispute free land

Special care should be taken on this account when buying an apartment so that your hard earned money is not wasted in vain. When choosing an apartment, you need to check whether it is freehold or leasehold. If it is leasehold, you need to check whether it is under RAJUK, National Housing Association, Cantonment Board or Ministry of Housing and Public Works. According to the type, you need to verify documents such as lease deed, baya deed, mutation documents, land tax, city survey etc. On the other hand for free hold property you need to check title deed,  baya deed, CS, RS, OS, Khatiyan, Mutation, Duplicate Carbon Copy, City Survey, Land Tax, NEC etc. You also need to check if the land is mortgaged or not. If necessary, you can take expert advice.

Design Approval and Construction

Home for middle income

 

You also need to check if the design has been approved from concerned authority and if it has been, then you need to check if the construction is being carried out according to the approved design. Of significance is checking whether structural, electric, plumbing designs are being followed during construction. In this case, you have to check reputation of Developer Company, such as years of experience, compliance with BNBC guideline, expertise of concerned architects and engineers etc.

Quality

Since it is a question of where you will live and security is involved, quality is of great significance. You have to ensure the structure is stable and sustainable. You need to see if structural design has been done following soil test report. Construction materials- rod, cement, bricks, stone etc should be of high quality. You need to remember many reputed companies provide importance to fittings and features but neglect construction quality. Even if these projects are economical it is best to not invest in such projects.

Financial planning

The right financial plan can make it easier to attain your dream of homeownership. Especially if you are among middle income people you need to step out of the mentality that you have to purchase flat with 100% own financing. If you have at least 10% amount in hand, you can take the decision to buy a home using long term, interest free installment and home loan. Research shows that after booking a flat, homeowners work hard to complete the dream of owning a home by becoming more responsible, cutting down extra expenditures, self motivation and so on.

Also after paying 30% from own equity, you can avail 70% amount as home loan and repay it as EMI. In such scenarios, you can look for ready flats. However, ready flats have the disadvantage of not always being suited to your requirements such as location, size etc. Sometimes you can buy ready flats from individuals or from small, unknown companies. It is better, however, to buy from reputed companies using long term installment facility. Considering financial analysis, products are appreciating in value by 10% rate. For example, apartment with current value Tk 50 lakh will be Tk 80,52,550  5 years from now. The capital gain then becomes Tk 30,52,500. And the most important thing is that you are buying a quality apartment from a renowned developer.

Financial institution assistance

Nowadays availability of home loan from banks and financial institutions has made it even easier to buy a flat. You just need to follow some guideline and have certain documents such as:

Bank statement of 1 year: Before giving loan, financial institutions want to have your bank statement of 1 year. All you have to do is to complete income- expenditure of every month through bank. Your bank statement shows the amount remaining after you have used up the rest as required by you for your expenditure.

Documents: if you are a salaried employee you have to show salary certificate and 3 month salary slip. If you are a businessperson, you need to show income statement, trade license, 3 year audit report, NID, photo etc.

Nowadays banks and financial institutions are offering home loan with interest rate of 8.75% – 10%. If required you can take assistance from DBH, IDLC, National Housing, Lanka Bangla, Standard Chartered Bank etc. Renowned developers have tied up with these banks for facilitating home loan process for apartment buyers so they can avail the home loan easily whenever they wish to purchase the apartment.

In conclusion, a home is one of the basic necessities of humans. As an aware, modern and capable citizen of today now is the right time to invest in an aesthetically designed home. Although we have limited space for living, the want for a home is eternal. In the current improved real estate condition it is indeed a smart decision to fulfill your dream of homeownership.

*********************************************************************

মধ্যম আয়ের মানুষের জন্য ফ্ল্যাট

লেখক: মোহাম্মাদ আশরাফুল ইসলাম

 

সুন্দর একটি গৃহকোন , একটু মাথা গোঁজার ঠাঁই কিংবা লনে বসে কপত-কপতির চা পানের রোমান্টিকতা-প্রতিটি সুখি দম্পতিরই লালিত বাসনা। বাদ দিলাম সে সেব কথা-নগর জীবনের কৃত্তিমতা, বেরসিক বাড়ীওয়ালার চোখ রাঙ্গানী, বাসা বদলের বিড়ম্বনা, আপনার সুন্দর স্মৃতিময় আসবাব পত্রের বিনাশ সাধন-সবই ঘটে মাত্র একটি পরিকল্পনার অভাবে। তাছাড়া অন্য কথাও এসে যায়, সারা মাসের কষ্টার্জিত বেতনের/উপার্জনের উল্লখেযোগ্য অংশ চলে যায় বাড়ীওয়ালার পকেটে। এমনি রূঢ় বাস্তবতার পরেও কেউ কি বসে থাকতে পারেন- মোটেও না। মধ্য আয়ের একজন মানুষ ইস্পাত কঠিন সদ্ধিান্ত নিয়ে ক্রয় করতে পারেন একটি ফ্ল্যাট, একটি স্বপ্ন। বর্তমানে ফ্ল্যাট কেনার জন্য শতভাগ গচ্ছিত অর্থের প্রয়োজন হয় না। দীর্ঘ মেয়াদী কিস্তিতে অতি সহজেই ফ্ল্যাট বুকিং দিতে পারেন। এক্ষেত্রে কয়েকটি বিষয়ের প্রতি গভীরভাবে মনোযোগ দিতে হবে।

স্থান / লোকেশন নির্বাচন

হাতে গচ্ছিত অর্থ ও মাসিক উপার্জনের উপর ভিত্তি করে লোকেশন ও ফ্ল্যাটের আয়তন নির্ধারণ করা উচিত। অনেকে আকাশ কুসুম চিন্তা করেন, প্রাইম লোকেশন ও বড় আয়তনের ফ্ল্যাট খুঁজতে থাকে, অদূরর্দশিতার কারনে একটি স্বপ্নের অপমৃত্যু ঘটে, কোন দিনও ফ্ল্যাট কেনা হয়ে উঠে না। বরং আয়ের সাথে সংগতি রেখে সম্ভাবনাময় লোকেশনে ছোট বা মাঝাড়ি আকারের ফ্ল্যাট নির্বাচন করা উচিত। যেখানে বর্তমান লোকেশন মূল্য অধিক, সেখানে বিনিয়োগ অনুপাতে লাভের সম্ভাবনা কম থাকে। বরং অতি দ্রুত উন্নয়নশীল এলাকা, চাহিদা অনুসারে সহজ যোগাযোগ ব্যবস্থা সম্বলিত আগামীর ঢাকার কথা মাথায় রেখে এলাকা নির্বাচন করাই শ্রেয়। প্রসঙ্গত বলা যেতে পারে, প্রাইম লোকেশন হিসেবে পরিচিত ধানমন্ডি, মোহাম্মাদপুর, লালমাটিয়া, কলাবাগান, নিউমার্কেট সহ আরো অনেক এলাকাতেই ইতিমধ্যেই চলাচল কষ্টসাধ্য হয়ে উঠেছে। অপর পক্ষে ফ্লাইওভার ও ৩০০ ফুট রাস্তার কল্যাণে কালশী, মিরপুর, পল্লবী, প্রগতি স্বরনী, খিলক্ষেতসহ বিভিন্ন এলাকায় বসবাস সাচ্ছন্দ্যময় হয়ে উঠেছে। তাছাড়া মেট্রোরেল প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে দ্রুত গতিশীল হয়ে উঠবে মেগাসিটি ঢাকার কেন্দ্র-খ্যাত উত্তরার চারিপাশ, বিশেষ করে উত্তরখান, দক্ষিণখান, দিয়াবাড়ী সহ অনেক এলাকা। ইতিমধ্যেই ১৬ টি ইউনিয়ন, ঢাকা উত্তর ও ঢাকা দক্ষিণসিটি কর্পোরেশেনের আওতায় এসেছে। এভাবে অনেক এলাকার নাম বলা যেতে পারে যেখানে বিনিয়োগ করলে অধিক লাভ পাওয়া যেতে পারে।

ফ্ল্যাট নির্বাচন

বিশ্বায়নের এ যুগে দ্রতই আমাদের চিন্তা-চেতনা, দৃষ্টি-ভঙ্গি রূচিবোধের পরিবর্তন হচ্ছে। মাত্র কয়েক বছর আগেও অনেকে একখন্ড জমি কিনে নিজের মত করে একটি বাড়ী নির্মান করতেন। কিন্তু বর্তমানে এর আমুল পরিবর্তন এসেছে, বাড়ী বানানোর মত ঝামেলায় কেও জড়াতে চান না কিংবা স্বাচ্ছন্দময় জীবন যাপনের জন্য ফ্ল্যাট সংস্কৃতিকেই বেছে নিচ্ছেন। এমন কি ১০-১৫ কোটি টাকা ব্যয়ে অনেকেই ফ্ল্যাট ক্রয় করছেন। সুবিধা হল দেশ-বিদেশে সহজে গমন, নিশ্চিত পাহারা দান, ঝামেলা মুক্ত দেখাশোনা ইত্যাদি। এবার আসি, বড় বড় কমপ্লক্সে ও কিছুটা কনডোমিনিয়াম (দেশীয় ধারনা মতে) জাতীয় ফ্ল্যাটের কথা। এ জাতীয় ফ্ল্যাটের ধারনা শুরুতে নেতিবাচক থাকলেও বর্তমানে এ গুলির জনপ্রিয়তা ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। তুলনামূলক কম দামে, কম সার্ভিস চার্জে সর্বোচ্চ আধুনিক সুবিধাসহ বসবাসের জন্য বড় কমপ্লক্সেরে বিকল্প নেই। সাধারন ফ্ল্যাটে যেখানে বাচ্চাদের খেলাধুলার জায়গা হয়না, বড়দের প্রাত:ভ্রমন বা হাঁটার পরিবেশ থাকেনা, টুকি-টাকি কেনা-কাটার ঝোট-ঝামেলা, পারিবারিক ছোট-বড় অনুষ্ঠান আয়োজনের বিড়ম্বনা, স্বাস্থ্য সচেতন বাসিন্দাদের জন্য ব্যায়ামাগার, নামাজের জায়গা, বার-বি-কিউ জোন সহ আধুনিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত হতে হয়। এই সব নানাবিধ কারণে বড় বড় নির্মান প্রতিষ্ঠান গুলো মানুষের রূচিবোধ ও যুগের সাথে তাল মিলিয়ে বড় বড় ফ্ল্যাট কমপ্লেক্স নির্মানে মনোনিবেশ করেছেন, যেখানে বাচ্চাদের খেলাধুলার জায়গা. মসজিদ, ব্যায়ামাগার, সুইমিংপুল, কমিউনিটি হল, হাঁটার জায়গা, বার-বি-কিউ জোন- ছোট বিপনি বিতান সহ নানাবিধ সুযোগ-সুবিধা। মজার ব্যাপার হল যুগের সাথে তাল মিলিয়ে সকল সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করা হচ্ছে, অথচ দাম থাকছে হাতের নাগালেই। এক কথায় সাধ ও সাধ্যের অপূর্ব মিল-বন্ধন। বিটিআই, কনকর্ড, নাভানা , রাকিন,  রূপায়ন সহ অনেক নির্মাণ প্রতিষ্ঠান এ জাতীয় বড় বড় কমপ্লেক্স নির্মান করেছেন।

নিষ্কন্টক জমি

ফ্ল্যাট ক্রয়ের সময় সবচেয়ে বেশী মনোযোগ দিতে হবে এই বিষয়টির প্রতি। আপনার কষ্টার্জিত অর্থ কোন ভাবেই যেন বিফলে না যায়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে । অর্থাৎ স্বপ্ন যেন দুঃস্বপ্নে পরিনত না হয়। ফ্ল্যাট নির্বাচনের সময় প্রথমে দেখতে হবে জমিটির ধরণ-যেমন লীজ হোল্ড না ফ্রি হোল্ড , লীজ হোল্ড হলে কোন কর্তৃপক্ষের -যেমন রাজউক, পূর্তমন্ত্রনালয়, জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ নাকি ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের। ধরন অনুসারে যাবতীয় কাগজ-পত্র যাচাই করতে হবে। কর্তৃপক্ষের আওতাভূক্ত জমি গুলির ক্ষেত্রে লীজ দলিল, বায়া দলিল, নামজারি অনুমতি পত্র, ডুপ্লিকেট কার্বন কপি, খাজনা এন.ই.সি, সিটি জরীপ ইত্যাদি কাগজ পত্র দেখতে হবে। অন্যদিকে ফ্রী হোল্ড হলে, টাইটেল দলিল, বায়া দলিল, সি এস, আর এস, ও এস এ খতিয়ান, নামজারী জমাভাগ প্রস্তাবপত্র, ডুপ্লকিটে কার্বন কপি, সিটি জরীপ অনুসারে খাজনা ও এন ই সি, ইত্যাদি দেখতে হবে। আর হ্যাঁ, জমিটি কোথাও বন্ধক আছে কিনা তাও যাচাই করে দেখতে হবে। প্রয়োজনে অভিজ্ঞ জনের পরামর্শ নিতে হবে।

অনুমোদিত ডিজাইন ও ত্রুটিমুক্ত নির্মান

যথাযথ কর্তৃপক্ষ থেকে প্রকল্পটির ডিজাইন অনুমোদন করা হয়েছে কি না – অনুমোদন হয়ে থাকলে ডিজাইন অনুসারে নির্মান কার্য সম্পাদন করছেন কি না- তা সচেতন ভাবে খেয়াল রাখতে হবে। বিশেষ করে স্ট্রাকচারাল , ইলেকট্রিক, প্লাম্বিং ডিজাইন মেনে নির্মান কাজ পরিচালনা করা হচ্ছে কিনা তা লক্ষ্য রাখা অত্যন্ত গুরুত্বর্পূর্ণ। এক্ষত্রেে নির্মান প্রতিষ্ঠানটির অভিজ্ঞতা ,বিল্ডিং কোড অনুসারে নির্মান করার মানসিকতা ও দক্ষ স্থপতি ও প্রকৌশলী আছে কি না ইত্যাদি যাচাই বাচাই করতে হবে।

গুনগতমান

যেখানে বাসস্থান ও নিরাপত্তার প্রশ্ন জড়িত, তা অবশ্যই হতে হবে গুনগতমানের দিক থেকে অত্যন্ত সুদৃঢ় ও মজবুত। মাটির গুনাগুন পরীক্ষার (Soil test) রিপোর্ট অনুযায়ী স্ট্রাকচারাল ডিজাইন হয়েছে কি না- তা অবশ্যই খতিয়ে দেখতে হবে। রড, সিমেন্ট, বালি, পাথর ,ইট সহ যাবতীয় মালামাল অবশ্যই উৎকৃষ্ট মানের হতে হবে। প্রয়োজনে বুয়েট টেস্ট রিপোর্ট দেখাতে হবে। মনে রাখা দরকার অনেক নাম সর্বস্ব কোম্পানী ফিটিং-ফিচারের প্রতি গুরুত্ব দিলেও নিম্নমানের নির্মান কার্য পরিচালনা করে থাকেন। দামে সস্তা হলেও তা বর্জন করা উচিত।

আর্থিক পরিকল্পনা

সঠিক আর্থিক পরিকল্পনা ফ্ল্যাট কেনার স্বপ্নকে সহজ করে দেয়। বিশেষ করে মধ্যম আয়ের মানুষদের একটু সাহসিকতার সাথে আর্থিক পরিকল্পনা করতে হবে। শত ভাগ গচ্ছিত অর্থ থেকে ফ্ল্যাট কেনার ধারনা থেকে বের হয়ে আসতে হবে। কথায় আছে ১০০% নিজেকে গুছিয়ে নিয়ে বিয়ে করার সিদ্ধান্ত যেমন বোকামী, তেমনি হাতে ৫০ লক্ষ বা কোটি টাকা জমা হবে তারপর ফ্ল্যাট কিনব তা আর্থিক পরিকল্পনার ক্ষেত্রে বাতুলতা মাত্র। বরং আপনার হাতে যদি নুন্যতম ১০% অর্থ গচ্ছিত থাকে, তবে দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। অবশিষ্ঠ টাকার কিছু অংশ দীর্ঘমেয়াদী সুদবিহীন কিস্তিতে ও কিছু অংশ আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সহায়তার মাধ্যমে পূরণ হতে পারে। অভিজ্ঞতার আলোকে বলা যেতে পারে, ফ্ল্যাট বুকিং দেওয়ার পর, তা বাস্তবায়নরে জন্য সবাই ইতিবাচক মানসিকতার পরিচয় দেয়। বিশেষ করে বাহুল্য খরচ বর্জন করেন, পারিবারিক বন্ধন দৃঢ় হয়, আত্ম-অনুপ্রেরণার মাধ্যমে নিজেকে উজ্জীবিত রাখেন এবং বেশী পরিশ্রম করেন। ফলে সহজেই স্বপ্নের বাস্তবায়ন সম্ভব হয়। আর হ্যাঁ, ৩০% টাকা পরিশোধ করে,অবশিষ্ট ৭০% টাকা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সহায়তায়ও পরিশোধ করতে পারেন, যা সহজ পদ্ধতিতে পরিশোধযোগ্য। এক্ষেত্রে অবশ্যই ফ্ল্যাটটি রেডী হলে ভাল হয়, তবে রেডী ফ্ল্যাটের ক্ষেত্রে অসুবিধা হল মনের মত লোকেশন, সাইজ, ফ্লোর ইত্যাদি পাওয়া সম্ভব হয় না। অনেক ক্ষেত্রে নাম সর্বস্ব কোম্পানী বা ব্যাক্তি মালিকানাধীন কিছু রেডি ফ্ল্যাট পাওয়া যেতে পারে, তবে তা বর্জন করাই ভাল। বরং ভাল কোম্পানীর দীর্ঘ মেয়াদী কিস্তির সুবিধা সম্বলিত পছন্দ মত ফ্ল্যাট নির্বাচন করা উচিত। অর্থনীতির ধারনা সূচকে ১০% হারে প্রতিটি দ্রব্যের মূল্য বৃদ্ধি পাচ্ছে। উদাহরণ স্বরূপ বলা যায়, যে ফ্ল্যাটটির মূল্য বর্তমানে ৫০ লক্ষ টাকা, আগামী ৫ বছর পর সেটির দাম দাঁড়াবে ৮০,৫২,৫৫০টাকা, এতে ক্যাপিটাল গেইন হচ্ছে ৩০,৫২,৫০০ টাকা । সবচেয়ে বড় কথা নিজের পছন্দ মত ও ভাল কোম্পানী থেকে ফ্ল্যাটটি কেনা সম্ভব হল।

আর্থিক প্রতিষ্টানের সহায়তা

বিভিন্ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান গুলো যেভাবে আবাসন খাতে ঋণ প্রদানে সহায়তা দিচ্ছে, তাতে মধ্যম আয়ের যে কোন মানুষের ফ্ল্যাট কেনা অতি সহজ। কিছু নিয়ম মেনে সামান্য কিছু কাগজ-পত্র থাকলেই চলে। যেমনঃ

এক বছররে ব্যাংক স্টেটমেন্ট

আর্থিক প্রতিষ্ঠান গুলো ঋণ দেয়ার পূর্বে ১ বছরের স্টেটমেন্ট দেখে থাকেন, বিষয়টি অত্যন্ত সহজ, আপনার প্রতিমাসের আয়-ব্যয় ব্যাংকের মাধ্যমে সম্পন্ন করতে হবে। অর্থাৎ সব ধরনের অর্জিত টাকা ব্যাংকে জমা দিয়ে প্রয়োজনে খরচের জন্য উত্তোলন করলে ব্যাঙ্ক স্টেটমেন্ট সমৃদ্ধ হবে।

কাগজ-পত্র

চাকুরী জীবিদের জন্য বেতনের সনদ অথবা ৩ মাসের স্যালারী স্লিপ দিলেই চলে। অন্যদিকে নিজ প্রতিষ্ঠান বা ব্যবসা থাকলে অর্জিত সম্মানীর প্রমান পত্র, ট্রেড লাইসেন্স, ৩ বছরের অডিট রিপোর্ট, ওয়াক অর্ডার, NID  ,ফটো ইত্যাদি দিতে হবে ।

আর হ্যাঁ, বর্তমানে ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান গুলো ৮.৭৫% -১০% সুদ হারে ঋণ প্রদান করছেন। প্রয়োজনে ডি বি এইচ, আই ডি এল সি, ন্যাশনাল হাউজিং, লংকা বাংলা, স্ট্যার্ন্ডাড র্চাটাড ব্যাঙ্ক সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সহযোগিতা নিতে পারেন। ভাল রিয়েল এস্টেট কোম্পানী গুলি প্রকল্পরে শুরুতইে আর্থিক প্রতিষ্ঠানের নিকট থেকে প্রকল্প অনুমোদন করে রাখেন। ফলে ফ্ল্যাট ক্রেতা ইচ্ছেমত সময়ে তাঁর নিজের সাথে সম্পর্কিত কাগজ পত্র প্রদান করেই গৃহঋণ পেতে পারেন।

সব শেষে বলা যায়, বাসস্থান হল মৌলিক চাহিদাগুলোর মধ্যে অন্যতম। একজন সচেতন, আধুনিক রুচিবোধ সম্বলিত নাগরিক হিসেবে মনের মত ডিজাইনের ফ্ল্যাট ক্রয়ে অতি দ্রত সিদ্ধান্ত গ্রহনের এখনই উপযুক্ত সময়। আমাদের বাসস্থানের জায়গা সীমিত কিন্তুু চাহিদা চিরন্তন। বর্তমনে রিয়েল এস্টেটের তুলনামূলক মন্দা বাজারে আপনার স্বপ্নের নীড় বা ঠিকানা নিশ্চিত করাই হচ্ছে বুদ্ধিমানের কাজ।