What is Happening in the Current Real Estate Sector of the Bangladesh? December 2016 Update

Get the latest scoop in the industry from various dailies and stay up to date with the real estate market in Bangladesh.

 

real-estate-industry-bangladesh

Challenges of Real Estate Sector
Source: Kaler Kontho
Date: 1 December 2016

The article features the challenges faced by the Real Estate Sector of the Bangladesh and how to overcome them.  The article references a research of International Finance Corporation which revealed that demand for accommodation will increase two fold times within next four years throughout the country and fulfilling the demand will require Tk 82,000 crore investment in the sector. Apart from several factors hampering the real estate sector of the country, financial crisis is also one such factor. In 1973 Bangladesh House Building Finance Corporation ceased allocating finance in real estate sector and on the other hand the interest rate on loans poses as a constraint in development of real estate sector.

According to the article, the biggest challenge of Real Estate Sector of the Bangladesh is fulfill financing demand for housing of low and middle income people. The research showed that banks are not so eager to provide loans in real estate sector of districts. This is because in the city if a debtor fails to pay off the loan, there is scope to auction the property against which loan has been taken but this option is not available in rural areas. The article recommends establishment of laws as well as initiative from government financial institutions and banks to provide finances for development of the sector. Not only in Dhaka but through PPP accommodation problem could be solved in areas outside too. If government takes initiative, other private organizations would also follow through.

The article also mentions other sectors related to real estate sector and if real estate sector is affected, these sectors would also be affected. Investment will be hampered and employment opportunity will be reduced. Moreover real estate sector will also face crisis. For this government needs to devise strategic rules and regulations and expand real estate sector outside Dhaka. The search for new investments may come in aid to the government for the development of the sector. Also banks may come forward with programs for providing loans in rural areas. All of these would help revive the real estate sector and facilitate growth of other related sectors as well as meet accommodation needs of common people.

Home Fest begins at ICCB
Staff reporter
Source: Daily Sun
Date: 3 December 2016

The article talks about Home Fest organized by Windmill Advertising held at ICCB for two days beginning on 2nd December 2016. The program was inaugurated by Housing and Public Works Minister Engr Mosharraf Hossain.

During the inauguration Mr. Mosharaf remarked about government initiative to ease housing crisis faced by city inhabitants. He stated government has taken up project to build 1 lakh new apartments in the city as well as its suburb Purbachal. The Purbachal new town will have 60 thousand new apartments with modern facilities and will be available at affordable cost.  He also stated about government agreement with Standard Chartered Bank to provide home loans with 8.5% interest rate for the next 25 years. He further remarked that along with the development of the country, the lifestyle and taste of people have also changed and everyone, including those in rural sector wants a better lifestyle.

The fest attracted a huge crowd and had a lot of interesting activities including art exhibition. The main highlight of the fair was a “real time execution” of three model apartments by shortlisted designers of the fest.

Purbachal to be the first smart city by 2018
Source: The New Nation
Date: 3 December 2016

The article talks about features of Purabchal new town project undertaken by the government of Bangladesh.
Chairman of Rajdhani Unnayan Kartripakkho (RAJUK) M Bazlul Karim Chowdhury told BSS about government plans to build Purbachal New Town Project which will be a planned smart city comprising of all modern amenities and facilities for providing its residents with a high standard of living. The project will have separate water supply and sewerage system, waste treatments plant and power production and supply system to provide the basic services without any interruption. Apart from these, it will also have provision to keep the smart city clean and eco friendly.

The project will be built on 60 acres of land at Purbachal and will have a 142 storey tower as well as a stadium with a capacity of 7,000 spectators. It will be connected to metro rail service for ease of transportation. The area will also provide space for holding DITF. Apart from having own waste management system, the project will feature health, education services and tight security system. The project is said to be the “biggest planned township” of the country and will be located between the rivers Shitalakhya and Balu in Rupganj Upazilla of Narayanganj district and Kaliganj upazilla of Gazipur district.

New Law to raise compensation for land acquired by Government
Source: Businessnews24bd.com
Date: 5 December 2016

The article reports on a new law cleared by The Cabinet to increase compensation for land acquired by the government. The compensation has been raised to three times the value of the property.
Regarding this, Cabinet Secretary Mohammad Shafiul Alam stated that according to current law the compensation for land is one and half times the value of the property. However, due to the change, a property worth Tk 10 million now will have a compensation of Tk 30 million. He further stated that property value will be set taking into account average price of land in last 12 months.

Currently government acquires land through an ordinance of 1982. The new law will require finalizing and presenting the draft of ‘Acquisition and Requisition of Immovable Property Act’. A committee has been formed with the land secretary and defense secretary as members law minister in charge regarding this.

10,000 Flats Unsold
M M Masud
Source: Manob Zamin
Date: 13 December 2016

The article talks about the current state of real estate market conditions pertaining to apartment selling and investment in real estate sector.

According to the article although amount of investment has increased over recent years, the sector is still facing recession. Developers have invested huge amount in building flats which are not being sold. According to REHAB sources in fiscal year 2015-2016, 10000 flats remain unsold. And the real estate sector has direct and investment of Tk 70 million.

The article mentions it is impossible to buy a flat on an individual’s saving which is why people seek home loan. However, despite the reduction in interest rate, customers’ interest has not increased in buying flats. And after 2010, number of apartments unsold has increased even though apartment price has come down. Due to loss in business 92 companies enlisted with REHAB had to shut down business.

The article shows the following data of 209 companies enlisted with REHAB:

Year 2010 2011 2012 2013 2014
Apartments Unsold 3018 3652 3887 5514 12185

The market price of these was TK 8 thousand 811 crore 19 lakh and 20 thousand. Other companies not enlisted with REHAB also had huge amount of unsold apartments. According to REHAB from 2010- 2014 11165 apartments were sold and 9779 apartments were handed over. In 2014, 1749 apartments were sold and this was much lower than the expected trend from 2010.

Apart from this apartment price in various locations of the city has also reduced. Data shows the following change in price over the last 4 year.

 

Location Apartment price now Apartment price before
Mirpur Tk 3000-5000/ sqft Tk 4000-7000/ sqft
Dhanmondi Tk 7000-10000/ sqft Tk 12000-Tk20000/sqft
Gulshan Tk 12000/sqft Tk 20000/sqft

REHAB Senior Vice President Nurunnobi  Chowdhury Shaon stated currently the real estate sector has an investment of 80-90 thousand crore Tk and employs nearly 35 million workers. Also 15% of country’s GDP is contributed to construction industry. However, due to problems in policy making REHAB members are facing uncertainty after investing huge amount of money.  REHAB started its journey in 1992 and currently it has 1151 members. According to REHAB there are around 3000 real estate companies in the country and around 2000 are not enlisted with REHAB due to unfavorable real estate market conditions.

REHAB Vice president Liakot Ali Bhuiyan recommended to overcome the dire situation by providing scope to invest black money in apartment buying without being questioned, and government should finance a special fund for making housing affordable to low and middle income people as proposed. He also stated registration fee which is currently very high, needs to be lowered to facilitate the real estate sector of the country.

Demand for home loan with single digit interest rate
Staff Reporter
Source: Kaler kantho
Date: 18 December 2016

The article focuses on changes required in real estate sector for improving the real estate market of Bangladesh.
Due to policy problems, the real estate sector is still facing crisis stated REHAB President Alamgir Shamsul Alamin. He stated there has been no announcement on single digit interest rate on housing loan because a few banks lowered interest rate. He urged government to announce interest rate to be lowered to single digit for home loans. He gave the speech at a news conference regarding REHAB Fair which will start from 21st December for 5 days. He further recommended to create 20 thousand crore tk refinancing scheme for home loan as well as reduce registration cost to 6-7%.

The organizers of the REHAB Fir stated the fair will continue from 21-25 December where a total of 175 stalls will be available. Of these 30 stalls will belong to building product and financial institutions. The fair has 28 sponsors. REHAB held this fair for the first time in 2001 from which it has been continuing annually. Till now REHAB has arranged 9 fairs. Apart from these REHAB has been arranging housing fair in foreign countries too since 2004. So far there have been 12 fairs in USA and 1 in UK, Dubai, Italy, Canada and Qatar. Also present in the news conference were REHAB Vice President Liakot Ali Bhuiyan, REHAB Director and Co chairman of Press and Media Committee Kamal Mahmud, Fair Standing Committee chairman Shakil Kamal Chowdhury and REHAB Director S M Jahidur Rahman Promukh.

Real Estate Fair pulls in crowds
Star Business Desk
Source:  The Daily Star
Date: 23 December 2016

The article reports on REHAB Fair 2016 held at Bangabandhu International Convention Center from 21st December. The 5 day long fair attracted a huge crowd of interested apartment buyers.  On the first day hundreds of visitors attended the fair with 175 stalls displaying projects from real estate companies. The huge turnout is a reflection of buyer’s renewed interest in apartment buying. REHAB members stated that buyers were mostly from low and middle income people group interested in small apartments. The realtors participating in the fair offered special discount and gifts to attract potential buyers where as financial institutions offered extra facilities for home loan to facilitate apartment buying.
The article also mentions Navana Real Estate, Building Technology and Ideas ltd and Rakeen Development and their upcoming projects in various locations and of various sizes in the capital city.

Real Estate Fair ends on high note
Star Business Desk
Source:  The Daily Star
Date: 26 December 2016

The article talks about the real estate fair organized by REHAB at Bangabandhu International Convention Center and the people’s response to it.

The article states that the fair has been a huge success with a great turn out of enthusiastic apartment buyers who showed high interest in small and medium apartments. Also Developer Companies offered special discount to attract prospective buyers. The fair had 175 stalls and it was attended by over 25000 people. Financial institutions offering home loans also partook in the fair. Besides showcasing apartments, developer companies also displayed other projects such as education institutes, mosques, community centers etc.

Kamal Mahmud, co-chairman of the REHAB media committee stated that the huge turnout of the crowd at the fair was beyond their expectations. Real estate entrepreneurs hoped the year would be favorable for the sector owing to political stability and price amendments. The article attributes political instability, a falling stock market, and lack of adequate gas and electricity supplies to be the reasons for turbulent real estate sector since 1912.

*************************************************************

বাংলাদেশের বর্তমান রিয়েল এস্টেট সেক্টরে কি ঘটছে?

                                                                                         অনুবাদক: আহমেদ নাজিয়া

দেশের নামকরা সকল পত্রিকা থেকে আবাসন শিল্প সম্পর্কে সাম্প্রতিক তথ্য জেনে নিজেকে হালনাগাদ রাখুন।

রিয়েল এস্টেট সেক্টরের সাম্প্রতিক প্রতিবন্ধকতা
তথ্য সুত্রঃ কালের কন্ঠ
তারিখঃ ১ ডিসেম্বর ২০১৬

এই সংবাদটি মূলত দেশের রিয়েল এস্টেট সেক্টর সাম্প্রতিক সময়ে কি কি প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হয়েছে এবং কিভাবে এই প্রতিবন্ধকতাগুলোর সমাধান করা যায় এই বিষয়ের উপরে লেখা হয়েছে। ইন্টারন্যাশনাল ফিন্যান্স কর্পোরেশনের বরাত দিয়ে এই সংবাদে বলা হয় যে আগামী চার বছরের মধ্যে জনগণের আবাসন চাহিদা বর্তমান সময়ের দ্বিগুণ হবে। এই সমস্যা সমাধানের জন্যে উক্ত সেক্টরে প্রায় ৮২,০০০ কোটি টাকার ইনভেস্টমেন্ট নতুন করে দরকার হবে। যে কারণগুলোর জন্যে দেশের রিয়েল এস্টেট সেক্টর ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে তার  মধ্যে অন্যতম একটি কারণ হলো বিনিয়োগের অভাব। যদিও ১৯৭৩ সালে বাংলাদেশ হাউজিং বিল্ডিং ফিন্যান্স কর্পোরেশন রিয়েল এস্টেট সেক্টরে নিঃশর্ত ভাবে বিনয়োগের ব্যবস্থা করে কিন্তু আবাসন ঋণের উপরে সুদের হার এই সেক্টরের উন্নয়নে একটি অন্যতম বাধা হিসেবে কাজ করছে।

সংবাদটির সুত্র থেকে আরো জানা যায়, নিম্ন এবং মধ্যম আয়ের মানুষের জন্যে আবাসন বিনিয়োগ নিশ্চিত করাটাই এই সেক্টরের অন্যতম একটি চ্যালেঞ্জ। অনুসন্ধান থেকে জানা যায়, ঢাকা শহরে যেভাবে আবাসন বিনিয়োগে ব্যাঙ্ক ঋণ পাওয়া যায়, ঢাকার বাহিরে জেলা শহরে এত্ত সহজে এই ঋণ পাওয়া যায় না। এর অন্যতম একটি কারণ হলো, ঢাকা শহরে কোন ঋণ গ্রহিতা ঠিক সময়ে ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হলে ঋণ দাতা প্রতিষ্ঠান যে আবাসন সম্পদের জন্যে ঋণ দিয়েছিলো সেই সম্পদটি নিলাম করার সুযোগ পায়। কিন্তু গ্রাম এলাকায় কিংবা স্বাধারণ জেলা শহরে এই সূযোগটি পাওয়া যায় না। সরকারী ফিন্যান্স এবং ব্যাঙ্ক সমূহ যাতে সহজেই আবাসন খাতে ঋণ প্রদান করার মাধ্যমে এই শিল্পের উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে পারে সেই ব্যাপারে আইন এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্যে সুপারিশ করেছে। এর মাধ্যমে শুধু ঢাকা শহরেই না বরং ঢাকার বাহিরেও আবাসন সমস্যার সমাধানে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া সম্ভব। সরকার নিজেই যদি পদক্ষেপ নেয় তাহলে অনেক বেসরকারী প্রতিষ্ঠানও একই পদক্ষেপ নেয়ার সাহস পাবে।

সংবাদটিতে আরো বলা হয় যে, যদি কোন কারণে আবাসন শিল্প ক্ষতিগ্রস্থ হয় তবে এর সাথে সম্পর্কিত অন্য শিল্প সমূহও ক্ষতিগ্রস্থ হবে, তাদের বিনিয়োগ ক্ষতিগ্রস্থ হবে এবং কর্মসংস্থানের সুযোগ কমে আসবে। তাই সরকারের এখন উচিত, আবাসন শিল্পের জন্যে কিছু সুনির্দিষ্ট আইন প্রণয়ন করা এবং আবাসন শিল্পকে ঢাকার বাহিরে ছড়িয়ে দেয়ার জন্যেও কাজ করা। নতুন বিনিয়োগ প্রাপ্তির ব্যাপারে সরকারও সহায়তা করতে পারে এবং ব্যাঙ্কগুলো ঢাকার বাহিরে জেলা শহরগুলোকে আবাসন ঋণ প্রদানের ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে পারে। এই সকল ব্যবস্থা এবং পদক্ষেপ আবাসন শিল্পকে বর্তমান সমস্যা থেকে রক্ষা করবে যেমন, একইসাথে স্বাধারণ মানুষের আবাসন সমস্যা সমাধানে একটি ভূমিকা রাখবে।

আই সি সি বি তে শুরু হলো হোম ফেস্ট
স্টাফ রিপোর্টার, ডেইলী সান
তারিখঃ ৩ ডিসেম্বর ২০১৬

এই সংবাদে মূলত বিজ্ঞাপনী সংস্থা “উইন্ডমিল” কতৃক আয়োজিত ২ দিন ব্যাপী “হোম ফেস্ট” নিয়ে আলোচনা করা হয়। আবাসন এবং গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিঃ মোশাররফ হোসেন গত ২রা ডিসেম্বর ২০১৬ সালে আই সি সি বি তে হোম ফেস্টের উদ্ভোধন করেন।
উদ্ভোধনকালে মাননীয় মন্ত্রী নাগরিকদের আবাসন সমস্যা সমাধানে সরকারের গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করেন। তিনি আরো বলেন যে, সরকার ঢাকা এবং ঢাকার পাশে পূর্বাচলে ১ লাখ নতুন এপার্টমেন্ট তৈরীর প্রকল্প হাতে নিয়েছে। পূর্বাচলের নতুন শহরে সকল প্রকার আধুনিক সূযোগ সুবিধা সহ প্রায় ৬০,০০০ এপার্টমেন্ট তৈরী হবে যা স্বাভাবিকের তুলনায় স্বল্প খরচে যে কেও কিনতে পারবেন। তিনি আরো উল্লেখ করেন যে, সরকার মাত্র ৮.৫% সুদে ২৫ বছরের জন্যে গৃহ ঋণের ব্যাপারের স্ট্যান্ডার্ড চার্টাড ব্যাঙ্কের সাথে চুক্তি করেছে। তিনি মনে করিয়ে দেন, দেশ এবং সময়ের সাথে সাথে নাগরিকদেরও পছন্দ এবং জীবন যাত্রার মান পরিবর্তন হয়েছে এবং এখন ঢাকার বাহিরেও সকলেই আধুনিক জীবন যাত্রার প্রত্যাশা করে। হোম ফেস্টে প্রচুর জনসমাগম হয় এবং একটি চিত্র প্রদর্শনী সহ বিভিন্ন রকম মজার কার্যক্রম ছিলো। মেলাটির অন্যতম আকর্ষণ ছিলো, আগে থেকেই নির্বাচিত ডীজাইনার দিয়ে তিনটি মডেল এপার্টমেন্টেকে সত্যিকারে সাজানো।

২০১৮ সালের মধ্যে পূর্বাচলে হচ্ছে দেশের প্রথম স্মার্ট শহর
তথ্য সুত্রঃ দ্যা নিউ নেশন
তারিখঃ ৩ ডিসেম্বর ২০১৬

বাংলাদেশ সরকার কতৃক গৃহীত পূর্বাচল নতুন শহর প্রজেক্ট নিয়ে মূলত আলোচনা করা হয়েছে এই সংবাদে।

রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) এর চেয়ারম্যান, এম বজলুর করিম চৌধুরী বিএসএস পূর্বাচল নতুন শহর প্রজেক্ট সম্পর্কে বিস্তারিত জানান। তিনি আরো জানান, পূর্বাচল শহরের নাগরিকদের জীবনযাপনের সকল রকম উন্নত সূযোগ সুবিধা নিশ্চিত করার জন্যে সকল রকম আধুনিক সূযোগ সুবিধা থাকবে। এই শহরটির জন্যে সম্পূর্ণ আলাদা পানির সাপ্লাই, পয়ঃনিস্কাশন ব্যবস্থা, বর্জ্য ব্যবস্থা, ইলেকট্রিসিটি উৎপাদন এবং বন্টন ব্যবস্থা থাকবে। এছাড়াও এই স্মার্ট শহরটিকে পরিস্কার এবং ইকো-ফ্রেন্ডলী রাখার সকল ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এই প্রজেক্টটি পূর্বাচলে ৬০ একর জমির উপর নির্মিত হবে যেখানে একটি ১৪২ তলা একটি বিল্ডিং এবং ৭০০০ দর্শক ধারণক্ষমতা সম্পন্ন একটি স্টেডিয়াম থাকবে। আধুনিক যোগাযোগ ব্যবস্থা নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে এই শহরটি মেট্রোরেল প্রকল্পের সাথে যোগ করা থাকবে। এই শহরে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা আয়োজনের জন্যে আলাদা জায়গা থাকবে। নিজেদের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ছাড়াও এই শহরে সাস্থ্য, শিক্ষা ব্যবস্থা এবং উন্নত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েও কাজ করা হবে। ধারণা করা হচ্ছে যে, শীতলক্ষ্যা এবং বালু নদীর মধ্যবর্তী এই প্রজেক্টটি দেশের সবচেয়ে বড় টাউনশীপ প্রজেক্ট হিসেবে গড়ে উঠবে। পুরো প্রজেক্টটি নারায়নগঞ্জের রূপনগর উপজেলা এবং গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার মধ্যবর্তী জায়গায় গড়ে উঠছে।

সরকারী অধিগ্রহণকৃত জমির জন্যে নতুন আইন হচ্ছে
তথ্যসুত্রঃ বিজনেজনিউজ২৪বিডি.কম
তারিখঃ ৫ ডিসেম্বর ২০১৬

এই সংবাদে মূলত সরকারীভাবে অধিগ্রহণকৃত জমির জন্যে ক্ষতিপূরণ বৃদ্ধির ব্যাপারে মন্ত্রীপরিষদ কর্তৃক পাশকৃত নতুন আইনের কথা বলে হয়েছে।

এই ব্যাপারে, মন্ত্রীপরিষদ সচিব, মোহাম্মাদ শফিউল আলম বলেন যে, বর্তমান আইন অনুযায়ী ক্ষতিপূরণের পরিমাণ বর্তমান সম্পদের বাজার বাজার মূল্যের দেড় গুন।  তবে বর্তমান আইন হিসেবে ১ কোটি টাকা সমমূল্যের সম্পদের জন্যে ৩ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ প্রদান করা হবে। তিনি আরো বলেন যে, সম্পদের বর্তমান মূল্য নির্ধারণের জন্যে পূর্বের ১২ মাসের গড় মূল্য হিসেব করা হবে।

বর্তমানে ১৯৮২ সালের অর্ডিন্যান্স অনুযায়ী সরকার জমি অধিগ্রহণ করে। নতুন আইনটি পাশ হবার পূর্বে “একুইজিশন এবং রিকুইজিশন অফ ইমোভেবল প্রোপার্টি এক্ট” টি নিশ্চিতকরণ করতে হবে। এই সংক্রান্ত সকল কাজ সম্পূর্ণ করার জন্যে ভূমি সচিব এবং প্রতিরক্ষা সচিবকে কেন্দ্র করে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

১০,০০০ ফ্ল্যাট অবিক্রিত রয়েছে
এম এম মাসুদ
তথ্যসুত্রঃ মানব জমিন
তারিখঃ ১৩ই ডিসেম্বর ২০১৬

আবাসন শিল্পের বর্তমান অবস্থা, এপার্টমেন্ট বিক্রী এবং এই শিল্পের বিনিয়োগ সংক্রান্ত বর্তমান অবস্থা নিয়ে উক্ত সংবাদে আলোচনা করা হয়েছে।

সংবাদটি থেকে জানা যায় যে, যদিও গত কয়েক বছরে আবাসন শিল্পে বিনিয়োগের পরিমাণ বেড়েছে কিন্তু এখনো এই শিল্প বিভিন্ন সংকটের মুখে। ডেভেলপাররা অনেক ফ্ল্যাট তৈরী করে বিনিয়োগ করেছেন কিন্তু এই ফ্ল্যাট সমূহের বেশিরভাগ অবিক্রিত অবস্থায় রয়েছে। রিহ্যাবের তথ্য মতে, ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরে প্রায় ১০০০০ ফ্ল্যাট অবিক্রিত অবস্থায় রয়েছে। আবাসন শিল্প খাতে প্রায় ৭০ মিলিয়ন টাকার বিনিয়োগ অব্যবহৃত অবস্থায় রয়েছে।

সংবাদে আরো বলা হয়, একজন নাগরিকের নিজের সঞ্চয় দিয়ে একটি ফ্ল্যাট কেনা অসম্ভব তাই সবাই গৃহ ঋণ খোঁজে। তবুও গৃহ ঋণে সুদের মাত্রা কমানোর পরেও ফ্ল্যাট কেনার জন্যে ক্রেতাদের আগ্রহ খুব একটা বৃদ্ধি পায় নি। ২০১০ সালের পরবর্তীতে যদিও ফ্ল্যাটের দাম অনেক কমে গিয়েছে কিন্তু অবিক্রিত ফ্ল্যাটের পরিমাণ বেড়েছে। ব্যবসায়িক ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে রিহ্যাবের তালিকাভুক্ত ৯২ টি আবাসন কোম্পানীকে বন্ধ হয়ে যেতে হয়েছে।

সংবাদে রিহ্যাব সদস্য ২০৯ টি কোম্পানীর অবস্থা দেখানো হয়ঃ

 

বছর ২০১০ ২০১১ ২০১২ ২০১৩ ২০১৪
অবিক্রিত ফ্ল্যাট ৩০১৮ ৩৬৫২ ৩৮৮৭ ৫৫১৪ ১২১৮৫

এই সকল ফ্ল্যাটের বর্তমান বাজার মূল্য ৮ হাজার ৮১১ কোটি ১৯ লাখ ২০ হাজার টাকা। রিহ্যাবের সদস্য নয় এমন অনেক কোম্পানীর কাছেও আরো বেশি পরিমাণে অবিক্রিত ফ্ল্যাট রয়েছে। রিহ্যাবের তথ্য মতে, ২০১০-২০১৪ এই সময়ে ১১১৬৫ টি এপার্টমেন্ট বিক্রি হয়েছে এবং ৯৭৭৯ টি এপার্টমেন্ট গ্রাহকের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। ২০১৪ সালে মাত্র ১৭৪৯ টি এপার্টমেন্ট বিক্রি হয়েছে যা কি না ২০১০ সাল থেকে ফ্ল্যাট বিক্রীর যে আনুপাতিক হার ছিলো তার চেয়ে অনেক কম।

এছাড়াও শহরের বিভিন্ন প্রান্তের এপার্টমেন্টের মূল্য কমে এসেছে। নীচের তালিকা থেকে গত ৪ বছরে ফ্ল্যাটের মূল্য হ্রাসের তালিক পাওয়া যাচ্ছেঃ

এলাকা বর্তমান এপার্টমেন্ট মূল্য পূর্বে এপার্টমেন্ট মূল্য
মিরপুর টাকা ৩০০০-৫০০০/ স্কয়ার ফীট টাকা  ৪০০০-৭০০০/ স্কয়ার ফীট
ধানমন্ডি টাকা ৭০০০-১০০০০/ স্কয়ার ফীট টাকা ১২০০০-২০০০০/স্কয়ার ফীট
গুলশান টাকা ১২০০০/স্কয়ার ফীট টাকা ২০০০০/স্কয়ার ফীট

রিহ্যাব এর সিনিয়র সহ সভাপতি নুরন্নবী চৌধুরী শাওন বলেন যে, বর্তমানে দেশের আবাসন শিল্পে ৮০-৯০ হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগ রয়েছে এবং প্রায় ৩৫ মিলিয়ন লোকে কর্মসংস্থান হচ্ছে এই শিল্পে। এছাড়া দেশের মোট জিডিপি এর প্রায় ১৫% এই শিল্প থেকে যোগ হচ্ছে। তবে পলিসি মেকিং এর সমস্যা থাকার কারণে রিহ্যাব সদস্যরা বড় অংকের বিনিয়োগের পরে এখনো অনিশ্চয়তার মুখোমুখি। রিহ্যাব ১৯৯২ সালে যাত্রা শুরু করার পরে বর্তমানে রিহ্যাবের সদস্য ১১৫১ টি প্রতিষ্ঠান। রিহ্যাবের তথ্য মতে দেশে এখন ৩০০০ রিয়েল এস্টেট প্রতিষ্ঠান রয়েছে এবং তাদের মধ্যে প্রায় ২০০০ প্রতিষ্ঠান আবাসন শিল্পের বর্তমান সমস্যার কারণে রিহ্যাবের সদস্য হতে পারছে না।

রিহ্যাবের সহ সভাপতি লিয়াকত আলী ভূইয়া বলেন যে, আবাসন শিল্পে কালো টাকা সাদা করার সূযোগ দেয়া হলে বর্তমান অচলাবস্থা কাটিয়ে উঠতে অনেকটাই সহায়তা করবে। এছাড়া সরকার নিম্ন এবং মধ্যবিত্ত মানুষদের জন্যে স্পেশাল ফান্ড গঠন করে আবাসন সংকট সমাধানে ভূমিকা রাখতে পারে।

১ সংখ্যার সুদে গৃহ ঋণের দাবী
স্টাফ রিপোর্টার
তথ্যসুত্রঃ কালের কন্ঠ
তারিখঃ ১৮ ডিসেম্বর ২০১৬

বাংলাদেশের আবাসন শিল্পের উন্নতির জন্যে প্রয়োজনীয় পরিবর্তনের উপরে এই সংবাদে আলোকপাত করা হয়েছে।

রিহ্যাব সভাপতি আলমগীর শামসুল আলম বলেন যে, পলিসিগত বিভিন্ন সমস্যার কারণে আবাসন শিল্প এখনো নানা রকম সমস্যার সম্মুখীন। তিনি বলেন যে, ১ সংখ্যার সুদে গৃহ ঋণের জন্যে এখনো কোন ঘোষণা আসে নি কারণ কিছু ব্যাঙ্ক সুদের মাত্রা কিছু কমিয়েছে। তিনি আরো বলেন যে সরকারের উচিত ঘোষণা দিয়ে সর্বিনিম্ন ১ সংখ্যার সুদের হারে গৃহ ঋণ নিশ্চিত করা। ২১ শে ডিসেম্বর হতে শুরু হতে যাওয়া ৫ দিন ব্যাপী রিহ্যাব মেলা সংক্রান্ত একটি সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দিতে গিয়ে তিনি কথাগুলো বলেন। তিনি আরো সুপারিশ করেন যে সরকারের উচিত রেজিস্ট্রেশনের খরচ কমিয়ে ৬-৭% নিয়ে আসা এবং একইসাথে ২০ হাজার কোটি টাকার গৃহ ঋণের একটি স্কীম ঘোষণা করা।

রিহ্যাব মেলার আয়োজক আরো জানান যে, এই বছরে রিহ্যাব মেলা ২১ শে ডিসেম্বর থেকে ২৫ শে ডিসেম্বর এই পাঁচদিন অনুষ্টিত হবে যেখানে ১৭৫ টি প্রতিষ্ঠান মেলায় অংশগ্রহণ করবে। এর মধ্যে ৩০ টি বিভিন্ন অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠান এবং বিল্ডিং সম্পর্কিত অন্যান্য শিল্পের প্রতিষ্ঠানের স্টল থাকবে। এইবার ২৮ টি প্রতিষ্ঠান অর্থনৈতিকভাবে মেলা আয়োজনে সহায়তা করছে। ২০০১ সালে রিহ্যাব এই মেলাটি প্রথম আয়োজন করলেও এখন প্রতিবছর একবার করে রিহ্যাব মেলাটি আয়োজন করছে। এখন পর্যন্ত রিহ্যাব ৯ বার মেলাটি আয়োজন করেছে। এছাড়া ২০০৪ সাল থেকে রিহ্যাব দেশের বাহিরেও আবাসন মেলা আয়োজন করছে। এখন পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে ১২ টি, যুক্তরাজ্য, দুবাই, ইতালী, কানাডা এবং কাতারে একবার করে আবাসন মেলা আয়োজন করেছে রিহ্যাব। এছাড়াও রিহ্যাব সহ সভাপতি লিয়াকত আলী ভূইয়া, রিহ্যাবের ডিরেক্টর এবং মিডিয়া কমিটির সহকারী চেয়ারম্যান কামাল মাহমুদ, মেলা আয়োজন সম্পর্কিত স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান শাকিল কামাল চৌধুরী এবং রিহ্যাব ডিরেক্টর এস এম জাহিদুর রহমান উক্ত সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

রিয়েল এস্টেট মেলায় দর্শনার্থীদের পদচারণা
স্টার বিজনেস ডেস্ক
তথ্যসুত্রঃ দ্যা ডেইলী স্টার
তারিখঃ ২৩ শে ডিসেম্বর ২০১৬

এই সংবাদটি মূলত গত ২১ শে ডিসেম্বর থেকে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক কনভেনশন সেন্টারে শুরু হওয়া পাঁচদিন ব্যাপী রিহ্যাব ফেয়ার ২০১৬ এর উপরে লেখা। এই মেলাটি আগ্রহী এপার্টমেন্ট ক্রেতাদের একটি মিলনস্থল হিসেবে কাজ করে। মেলার প্রথম দিনে প্রায় শতাধিক আগ্রহী ক্রেতা মেলাতে অংশগ্রহণকারী ১৭৫ টি রিয়েল এস্টেট কোম্পানীর স্টল এবং প্রোজেক্ট পরিদর্শন করে। মেলাতে দর্শনার্থী এবং ক্রেতাদের এই উপস্থিতি মূলত এপার্টমেন্ট কেনার প্রতি ক্রেতাদের আগ্রহকেই চিহ্নিত করে। রিহ্যাব থেকে জানা যায় যে, মেলায় মূলত নিম্ন এবং মধ্য আয়ের ক্রেতারা ছোট ছোট এপার্টমেন্টের প্রতি আগ্রহী ছিলেন। মেলায় অংশগ্রহণকারী আবাসন শিল্পের বিভিন্ন কোম্পানী যেমন বিভিন্ন রকম মূল্য ছাড় এবং উপহারের ব্যবস্থা রেখেছিলো সম্ভাব্য ক্রেতাদের আকৃষ্ট করার জন্যে একইভাবে বিভিন্ন ফিন্যান্স কোম্পানী এপার্টমেন্টের ঋণের উপরে বিভিন্ন রকম বাড়তি সূযোগ রেখেছিলো আগ্রহী ক্রেতাদের আকৃষ্ট করার জন্যে। এই সংবাদটিতে একই সাথে নাভানা রিয়েল এস্টেট, বিল্ডিং টেকনোলজি এন্ড আইডিয়াস লিমিটেড এবং র‍্যাকিন ডেভেলপমেন্টের ঢাকা শহরের বিভিন্ন লোকেশনে তাদের নতুন প্রজেক্ট নিয়েও আলোচনা করা হয়।

বিপুল পদচারণার মধ্যে দিয়ে শেষে হলো রিয়েল এস্টেট মেলা।
তথ্য সুত্রঃ স্টার বিজনেজ ডেস্ক
তারিখঃ ২৬ ডিসেম্বর ২০১৬

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে রিহ্যাব কতৃক আয়োজিত রিয়েল এস্টেট মেলা এবং দর্শনার্থীদের প্রতিক্রিয়া নিয়ে এই সংবাদে মূলত আলোচনা করা হয়েছে।

এই সংবাদে বলা হয়ে যে, আগ্রহী ক্রেতাদের বিপুল পদচারণার মধ্যে দিয়ে রিয়েল এস্টেট মেলা সফলভাবে সমাপ্ত হয়। ক্রেতাদের একটি বড় অংশ মূলত ছোট মাঝারি সাইজের এপার্টমেন্ট নিয়ে আগ্রহী ছিলেন। বিভিন্ন ডেভেলপার কোম্পানী ক্রেতাদের আকৃষ্ট করার জন্যে নানা রকম মূল্যছাড় এবং অফার ঘোষণা করেছিলো। মেলাটিতে ১৭৫ টি স্টল ছিলো এবং প্রায় ২৫০০০ দর্শনার্থী মেলাতে আসেন। মেলাতে বিভিন্ন ফিনান্সিয়াল কোম্পানী আবাসন ঋণের বিভিন্ন প্যাকেজও ঘোষণা করেছিলো। দর্শনার্থীদের জন্যে বিভিন্ন রকম এপার্টমেন্টের প্রদর্শনী ছাড়াও ডেভেলপার কোম্পানীসমূহ তাদের অন্যান্য প্রজেক্ট যেমন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ এবং কম্যুনিটি সেন্টারের মডেলেরও প্রদর্শনী করেন।

রিহ্যাব মিডিয়া কমিটির সহকারী চেয়ারম্যান কামাল মাহমুদ বলেন যে, মেলাতে দর্শনার্থী সমাগম তাদের প্রত্যাশার থেকেও অনেক বেশি। রাজনৈতিক ভাবে ভালো পরিবেশ এবং মূল্য সংশোধনীর কারণে এই বছরে দেশের আবাসন ব্যবসা আরো ভালো হবে বলে আবসন শিল্পের উদোক্ত্যারা আশা প্রকাশ করেন।